magazine_cover_12_november_18.jpg

 

Home sports এটা কি ঠিক হল?

এটা কি ঠিক হল?

sports-virat বিরাট কোহলির আচরণ দেখে এখন সুকুমার রায়ের একটা কবিতার লাইনের কথা খুব মনে পড়ছে। ‘দিব্যি ছিলেন খোশমেজাজে চেয়ারখানি চেপে, একলা বসে ঝিমঝিমিয়ে হঠাৎ গেলেন ক্ষেপে…’। বেশ তো চলছিল… কোহলির বৃহস্পতি এখন তুঙ্গে! সেঞ্চুরির পর সেঞ্চুরি, রেকর্ডের পর রেকর্ড, অধিনায়ক হিসেবেও নজরকাড়া সাফল্য— সবই একে-একে আসছিল হাতের মুঠোয়। নিজের যোগ্যতায় নিজেকে অনেকের কাছে আইডল করে তুলেছিলেন তিনি। সংবাদমাধ্যমও তাঁর প্রশংসায় পঞ্চমুখ। এর মধ্যে যে এমন একটা কাণ্ড তিনি ঘটিয়ে ফেলবেন, তা সত্যিই ভাবা যায়নি…

ব্যাপারটা হয়তো ইতিমধ্যেই অনেকে জেনে গিয়েছেন, তবুও যাঁরা জানেন না, তাঁদের বলি, সোশ্যাল মিডিয়ায় একজন সাধারণ ব্যক্তি কোহলিকে ‘ওভার-রেটেড’ ব্যাটসম্যান হিসেবে চিহ্নিত করে বলেন যে তিনি ভারতীয় ব্যাটসম্যানদের থেকে ইংল্যান্ড এবং অস্ট্রেলিয়ার ব্যাটসম্যানদের খেলা দেখতে বেশি পছন্দ করেন। সম্প্রতি লঞ্চ হওয়া নিজস্ব অ্যাপে বিরাট কোহলি একটি ভিডিয়ো বার্তায় জানিয়েছেন যে ওই ব্যক্তির দেশ ছেড়ে চলে যাওয়া উচিত, কারণ তাঁর মতে যারা ভারতে থেকে অন্য দেশের খেলোয়াড়দের ভালবাসেন, তাদের দেশে থাকার অধিকার নেই…

স্বাভাবিকভাবেই এই ভিডিয়ো প্রকাশ পাওয়ার পর থেকেই কোহলির উদ্দেশে নিন্দার ঝড় বয়ে গিয়েছে। এতটা রূঢ় মন্তব্য করা হয়তো সত্যিই উচিত হয়নি বিরাটের। ব্যক্তিগত পছন্দ-অপছন্দ ভিন্ন হতেই পারে, আর তা যে সবসময় দেশ-কালের সীমানা মেনে চলবে, তা-ও নয়। বিরাট কোহলি নিজেও অনেক সময় অনেক জায়গায় বলেছেন যে হার্শেল গিবস, এ বি ডেভিলিয়ার্স তাঁর পছন্দের ক্রিকেটার। তবে তো, বিরাট নিজেও নিজের বেঁধে দেওয়া সীমা লঙ্ঘন করেছেন… আর দেশ জুড়ে যে অসহিষ্ণুতার আবহ তৈরি হয়েছে, তাতে মনে হয় টিম ইন্ডিয়ার ক্যাপ্টেনের আরও একটু সংযত হওয়া উচিত ছিল, তিনি সেলিব্রিটি বলেই তো আর যা খুশি মন্তব্য করতে পারেন না… তাঁর বোঝা উচিত, দেশ জুড়ে এখন তাঁর যা জনপ্রিয়তা, তাতে অন্য কেউ কোনও বিতর্কিত মন্তব্য করলে যে প্রতিক্রিয়া হবে, তাঁর করা মন্তব্যে সেই প্রতিক্রিয়া হবে অনেক বেশি। নাকি এইসব মন্তব্য করে তিনি বিশেষ কারওর নজরে পড়তে চাইছেন?

Virat Kohli | Controversy