magazine_cover_12_january_17.jpg

Tolly Interview

“আমি টিপিক্যাল গ্ল্যামারগার্ল নই!”: কায়রা দত্ত

মুম্বইয়ে ‘ক্যালেন্ডার গার্লস’-এ শুরু করে, কলকাতায় কায়রা দত্ত পা দিলেন ‘জ়ুলফিকর’-এ অভিনয় দিয়ে! তাঁকেই একটু চেনার চেষ্টায় তাঁর মুখোমুখি হলেন ধৃতিমান গঙ্গোপাধ্যায়।

kayra-big

রেস্তোরাঁয় ইন্টারভিউ। এসেই আপনি খাবার খুঁজছেন! আপনি না গ্ল্যামার মডেল! রেজিমের কী হবে?
ও শিট! ধরা পড়ে গিয়েছি! দেখুন, রেজিম তো আছেই। কিন্তু আমি ফুডি। আর এতদিন পর কলকাতায় এসে ডায়েট করা সম্ভব না। মা অসাধারণ রান্না করেন। তাছাড়া মুম্বইয়ের তুলনায় কলকাতার খাবার অনেক ভাল। তা সে রেস্তোরাঁরই হোক, বা রাস্তার। ফলে এখানে ডায়েট মেনটেন করা সম্ভব না মোটেই। জিম মেম্বারশিপ নেওয়া আছে। পেটপুরে খেয়ে নিই! সকালে জিমে দৌড়ব!

কলকাতায় এতদিন পর মানে… আপনি মুম্বইয়েই বড় হয়েছেন?
না, আমার স্কুলজীবনটা কলকাতাতেই কেটেছে। লা মার্টিনিয়রে আমার স্কুলিং। তখনই মডেলিং শুরু করি। কলকাতায় তো পুরো ব্যাপারটাই পরিবারের মতো। ‘অ্যাই, গয়নার শুট আছে, চলে আয়,’ বলে ডেকে নেয়! এই ছোট্ট মেয়েটা এভাবেই সব জায়গায় বিভিন্ন অ্যাসাইনমেন্ট করে বেড়াত। কলেজে পড়তে যাই মুম্বইয়ে। মডেলিংয়ের ইচ্ছেটা ছিলই। তবে শিয়োর ছিলাম না খুব একটা। যা-ই হোক, মুম্বইয়ে গিয়ে মডেলিংটা আরও সিরিয়াসলি শুরু করি। তারপর অভিনয়ের পোকাটা কামড়ায়। ওখানে অশ্বিন গিদওয়ানি প্রোডাকশনে নাটক করেছি বেশ কয়েকদিন। তারপর অনুপম খেরের অ্যাকাডেমি থেকে কোর্স করি। সিদ্ধান্ত নিই যে অভিনয়টাই করব। মডেলিং আর নয়!

দাঁড়ান দাঁড়ান… আপনি অভিনয় শিখেছেন! এ কী! ইমেজ ভেঙে যাচ্ছে তো!
এ বাবা! সবাই জেনে গেল! আসলে মডেলদের বিষয়ে কিছু স্টিরিয়োটাইপ থাকেই। এরা শুধুই গ্ল্যামার দেখাবে, অভিনয় পারবে না! আমি মোটেই টিপিক্যাল গ্ল্যামার গার্ল নই। মুম্বইয়ে থাকি বলেই বাংলা বলতে পারে না, বুঝতেই পারছেন এই ধারণাও আমার ব্যাপারে চলবে না!

এগজ়্যাক্টলি! লা মার্টিনিয়রে পড়া ট্যঁাশ মেয়ে…
হাঃ হাঃ! সত্যি! আমি একেবারেই ‘ট্যঁাশ’ নই। আর আমার আশা, আমি এরকমই থাকব বরাবর।

kayra-small
‘জ়ুলফিকর’-এ তো আপনি আলবিনা, ওরফে অক্টেভিয়া! কীভাবে কাজটি পেলেন?
প্লেন লাক! ‘ক্যালেন্ডার গার্লস’-এর পর যখন কলকাতায় প্রচারে এসেছিলাম, বলেছিলাম একটা বাংলা সিনেমা করব। কিন্তু ভাবিনি সেটা এত তাড়াতাড়ি হবে এবং তা-ও এমন স্কেলে। সৃজিতস্যার (মুখোপাধ্যায়) যখন আমায় ফোন করেন, তখন আমি মুম্বইয়ে। এমন অফার পেয়ে না বলার তো প্রশ্নই ছিল না। তাছাড়া আমার লুকটা এমন, সবাই আমায় গ্ল্যামারাস রোল অফার করে। কিন্তু এই ছবিতে আমি একেবারেই ডিগ্ল্যাম। সেটাও খুব ইন্টারেস্টিং…

এমন কাস্ট, ভয় করেনি?
আমি মুম্বইয়ে দুটো সিনেমা করেছি বটে, কিন্তু এটা আমার প্রথম বাংলা সিনেমা। এমন কাস্ট, আর আমি একমাত্র নিউকামার। বাংলা সিনেমা দেখা শুরুই তো করলাম খুব সম্প্রতি। ফলে ভয় পাওয়াটাই স্বাভাবিক! কিন্তু এখানে এসে দেখলাম সবাই প্রচণ্ড কাইন্ড। এমন করে আপন করে নিল, এটাই বোধহয় বাঙালি ওয়ে। প্রথম ছবিতেই এতকিছু পেলাম! বললাম না, দারুণ লাকি!

এত লাকি হওয়ার কারণ কী বলুন তো?
ভাবতেই বা যাব কেন? টাচউড! আমার মনে হয় এটা বিগিনার্স লাক! যেন এরকমই থাকে!

আপনার বয়ফ্রেন্ড কোথায় থাকেন? কলকাতা না মুম্বই?
ও মাই গড! দেখলেন, আপনি ধরেই নিলেন আমি ট্যঁাশ গার্ল, তা-ও উইথ আ বয়ফ্রেন্ড! আমি কিন্তু সিঙ্গল!

সব সেলেব্রিটিরা যেমন বলে?
না না, আমার সত্যিই বয়ফ্রেন্ড নেই। এবার কলকাতায় খুঁজব, যদি কাউকে পাই!

আপনার হাতের ট্যাটুতে ওটা কী? ‘ফেথ’!
আমি নিজের প্রতি বিশ্বাস রাখার চেষ্টা করি। আশা করি এই বিশ্বাসটাই আমায় টিকিয়ে রাখবে! বয়ফ্রেন্ড পাওয়ারও বিশ্বাস রাখছি কিন্তু!

Our Recent Interviews

cc

কোরিয়োগ্রাফার সরোজ খানের সহকারী হিসেবে মুম্বইতে কেরিয়ার শুরু করেছিলেন। এরপর বাংলা ছবিতেও প্রায় বছর দশেক হল কোরিয়োগ্রাফি করছেন। তবে এবার শুধু কোরিয়োগ্রাফি নয়, নতুন বাংলা ছবি ‘বস’-এর হাত ধরে তিনি ডিরেকশনে ডেবিউ করতে চলেছেন। ‘বস’ এবং অন্যান্য বিষয় নিয়ে বাবা যাদব চুটিয়ে আড্ডা দিলেন আসিফ সালামের সঙ্গে

cc

তিনি অবসর সময়ে স্বামীর সঙ্গে চুটিয়ে কম্পিউটার গেমস খেলেন! বড় পর্দায় অভিনয় করতে চান, কিন্তু তাঁর ঠিক করা চারটে ‘শর্ত’ মিলে গেলে, তবেই! ‘বউ কথা কও’- এর শান্ত ঘরোয়া ‘মৌরি’ থেকে ‘সখী’র সাহসী ‘ঈশানী’, এক বছর অভিনয় থেকে অবসর, তারই ফাঁকে নিজের লুক চেঞ্জ, সঙ্গীত শিল্পী সপ্তক ভট্টাচার্যকে বিয়ে…সব কিছু নিয়ে প্রশ্নের উত্তর দিলেন মানালি দে ভট্টাচার্য, শুনলেন ঊর্মি নাথ

cc

থিয়েটার সব সময়ই তাঁর প্রথম পছন্দ। এটি নিয়েই তিনি বাঁচেন। দেবশঙ্কর হালদার খুললেন মনের দরজা। সাক্ষী থাকলেন সায়ক বসু

1 2 3 4 5 6 7 8 9 >