magazine_cover_12_november_17.jpg

Anandalok Review

অতিরিক্ত সংলাপের দেখনদারি

সরকার ৩
sarkar3-still
পরিচালনা: রামগোপাল ভর্মা
অভিনয়: অমিতাভ বচ্চন, অমিত সাধ, মনোজ বাজপেয়ী, রনিত রায়, জ্যাকি শ্রফ, যামী গৌতম

‘সরকার’-এ সুভাষ নাগড়ে (অমিতাভ বচ্চন) শুধু চোখের ইশারায় এবং ফেসিয়াল এক্সপ্রেশন দিয়েই নব্বই শতাংশ অভিনয় করেছিলেন। তাঁর মুখে সংলাপের খুব একটা প্রয়োজন ছিল না। ‘সরকার রাজ’-এ তাঁর সংলাপের পার্সেন্টেজ বাড়ে। ‘সরকার ৩’-তে এসে সেটা প্রলয়ের আকার নেয়! শুধু সুভাষই নন, ছবিতে অন্যান্য চরিত্রদের মুখে এত সংলাপের ফুলঝুড়ি ছবিটির গতি শ্লথ করে দেয়। আর সুভাষ আগের সিকোয়েলগুলির মতো এখানেও চায়ের কাপে চুমুক দিতে-দিতে, লম্বা পজ় নিয়ে কথা বলেন। তাই এই অ্যাকশনের সঙ্গে একের-পর এক সংলাপ যা শুধুই জ্ঞান দেয় আর ছবিটিকে বোরিং করে তোলে। ছবির গল্পে সুভাষের নাতি, অর্থাৎ বড়ছেলে বিষ্ণুর (কে কে মেনন) ছেলে চিকু (অমিত সাধ) প্রবেশ করেন। তাঁর বাবাকে সুভাষের লোকেরা মেরে ফেলেছিলেন। সকলেই ধরে নেয় যে চিকু তাঁর বাবার মৃত্যুর প্রতিশোধ নিতে এসেছেন। তিনি ছাড়াও আরও কয়েকজন রয়েছেন যাঁদের স্বার্থ সফল হবে যদি সুভাষকে মেরে ফেলা যায়। চিকু তাঁদের সঙ্গে হাত মেলান। কিন্তু একটা টুইস্ট রয়েছে যা ক্লাইম্যাক্সে গিয়ে উন্মোচন হয়। তবে ছবিটি একটা সময় গিয়ে এতটাই স্লো হয়ে যায় যে ক্লাইম্যাক্স অবধি পৌঁছনোর ধৈর্য দর্শকদের থাকে না। তবে এই ছবির সম্পদ সকলের অভিনয়। অতিরিক্ত সংলাপ থাকলেও, সুভাষ নাগড়ের চরিত্রে অমিতাভ আরও একবার নিজের জাত চিনিয়ে দিয়েছেন। চিকুর চরিত্রে অমিত মন্দ করেননি। অন্যান্য চরিত্রে রনিত রায়, মনোজ বাজপেয়ী, যামী গৌতম, ভাল অভিনয় করেছেন। তবে ছবিতে জ্যাকি শ্রফ এবং স্বল্পবাসে তাঁর প্রেমিকাকে খুব বেমানান লেগেছে। ছবিতে তাঁদের কোনও প্রয়োজন ছিল না। ছবিতে ক্যামেরার কাজ ও ব্যাকগ্রাউন্ড মিউজ়িক বেশ ভাল। তবে এই ছবি থেকে আশার প্রাপ্তি একটাই। ‘বীরাপ্পন’ দেখার পর মনে হয়েছিল আমরা বোধহয় পরিচালক রামগোপাল ভর্মার ট্যালেন্ট চিরস্থায়ী ভাবে হারিয়ে ফেলেছি। কিন্তু এই ছবি দেখার পর মনে হচ্ছে, আর একটু পরিশ্রম করলে হয়তো ভবিষ্যতে আমরা পুরনো রামগোপাল ভর্মাকে আরও একবার ফিরে পেতে পারি। এই ছবিতে তার ঝলক অল্প হলেও পাওয়া গিয়েছে।