magazine_cover_12_november_19_00.jpg

 

Home music news অভিনব কীর্তি কৌশিকের

অভিনব কীর্তি কৌশিকের

koushik-music-big২০১২ সালে যখন নিজের ইউটিউব চ্যানেলটি খুলেছিলেন তিনি, তখন তার পিছনে কারণ হিসেবে ছিল নিখাদ মজা। আসলে তখন তো সিডি বা ক্যাসেটের বাজার অতটা খারাপ হয়নি!অ্যালবামও বেরতো নিয়মিতভাবেই। ফলে আলাদা করে চিন্তার কিছু ছিল না। কিন্তু তার কিছুদিন পরেই ডিজিটালাইজ়েশনের ধাক্কা লাগে সঙ্গীত জগতে। অ্যালবামের বিক্রি কমতে থাকে, এ বঙ্গের শিল্পীরা বুঝে উঠতে পারেননি, এবার গান প্রচার বা বিক্রির অভিমুখ কী হবে।বলতে বাধা নেই, প্রাথমিকভাবে হয়তো কৌশিক চক্রবর্তীও বোঝেননি উপায়ের কথা।তিনি বুঝতেও পারেননি, তাঁর হাতে এত বছরের পুরনো একটা ইউটিউব চ্যানেল রয়েছে। সেটি তিনি বোঝেন ২০১৭ সাল নাগাদ।যখন তাঁর গানের ভিডিয়ো চালিয়ে সাবস্ক্রিপশন বাড়াতে থাকে কিছু চ্যানেল। তাই তিনি আর দেরি করেননি। সঙ্গে সঙ্গে নিজের গান, লোকসঙ্গীতকে নিজের মতো করে দেখার চেষ্টা, তাঁর ছাত্রদের দল ‘নগরসংকীর্তন’-এর সঙ্গে ইন্টারভিউ, পুরনো গানের মেডলি… সব প্রকাশ করতে থাকেন। গত দু’বছরে ১৪টি গান উপহার দিয়েছেন তিনি। এবার তার ফল হাতেনাতে পেলেন। কৌশিক চক্রবর্তীর ইউটিউব সাবস্ক্রিপশন এক লক্ষ পেরিয়ে গেল। এবার আপাতভাবে হয়তো ‘এক লক্ষ’ সংখ্যাটা আপনাদের কাছে সাধারণ ঠেকতে পারে। কিন্তু আদপেই তা নয়। কারণটা শুনে নিন কৌশিকের মুখ থেকেই, ‘‘আমিই বোধ হয় পশ্চিমবঙ্গের প্রথম শিল্পী, যাঁর ইউটিউব সাবস্ক্রিপশন এক লক্ষ ছাড়াল।আমার মতো শিল্পী, যে শুধু বাংলা গানকেই ভালবেসেছে, এই ভাষার গান নিয়েই কাজ করবে বলে ভেবেছে, তার কাছে এটা বিরাট একটা পাওনা। কারণ সম্পূর্ণ নিজের চেষ্টা এবং কারিগরি দক্ষতায় আমি চ্যানেলটিকে এই জায়গাতে তুলে আনতে পেরেছি, কোনও ডিজিটাল প্রোমোশান কোম্পানির সাহায্য বা বুস্ট ছাড়াই। গানের রেকর্ডিং থেকে শুরু করে পোস্ট প্রোডাকশন, সব আমি নিজের হাতে করি। ফলে…’’ ফলে এই সাফল্যে এখন আরও বড় লক্ষ্য স্থির করছেন কৌশিক। চাইছেন আরও ভাল, পরীক্ষামূলক কাজ করে যেতে।এই লড়াইয়ে এরকম একটা বড় পদক্ষেপ চাট্টিখানি কথা নয় তিনি জানেন। কিন্তু এখনও যে অনেক পথ চলার বাকি।

সায়ক বসু

Koushik Chakraborty | Koushik o nagasankirtan