magazine_cover_12_november_18.jpg

Anandalok Review

গডজ়িলা

পরিচালনা : গ্যারেথ এডওয়ার্ডস

অভিনয়ে : অ্যারন টেলর-জনসন, কেন ওয়াতানাবে, ব্রায়ান ক্র্যানস্টোন

সোজা কথাটা সোজাভাবে বলাই ভাল। ছবিটা ভাল লাগেনি। ১৯৯৮-এর পুরনো ‘গডজ়িলা’-র সঙ্গে ২০১৪-র এই নতুন ‘গডজ়িলা’-র তুলনা আসাটা খুবই স্বাভাবিক। সময়ের সঙ্গে তাল মিলিয়ে প্রযুক্তি এগিয়েছে নির্ঘাত, কিন্তু তাতেও মন ভরল কই? এ ছবির গডজ়িলা মানুষের শত্রু নয়। মানুষ কী করল, না-করল, তা নিয়ে আদৌ তার মাথা ব্যথা নেই। সে বরং অনেক বেশি ব্যস্ত ব্যক্তিগত সমস্যা সমাধানে। এ ছবিতে তার সমস্যা অতিকায় এক পোকা। যার পোশাকি নাম ‘মুটো’ ! মুটো আর তার বউ, দু’জনকে সবংশে নিধন করাই গডজ়িলার জীবনের মোটো। সেই করতেই সাত সমুদ্র পেরিয়ে এসে সে হাজির হয় সান ফ্রান্সিসকো শহরে। তারপর সে কী মারপিট তিন দানবের! এ ছবির গডজ়িলা যারপরনাই মোটা। মোটা ভার্সেস মুটোর লড়াইয়ে শেষমেশ জয়ী হয় গডজ়িলা। সমবেত শহরবাসীর তুমুল হর্ষধ্বনির মধ্যেই যুদ্ধবিধ্বস্ত গডজ়িলা হেলতে-দুলতে গিয়ে মিলিয়ে যায় সমুদ্রে। থ্রি ডি এফেক্টে ছবির হেলিকপ্টারগুলো মুখের কাছাকাছি এল বটে, গডজ়িলা কিন্তু এল না। সব মিলিয়ে ছবিটি হতাশাজনক। থ্রি ডি তে যারা দেখবেন, শুধুই খারাপ সিনেমা দেখলাম, এই কষ্টটার পাশাপাশি নিজের মানিব্যাগের অনথর্ক হালকা হয়ে যাওয়ার জন্যও কষ্ট পাবেন ভীষণ। এক্কেবারে ওলে-বাবা-লে-কুচুপুচু-সোন্টুমুনুদের জন্য অবশ্য এই ছবিটাই ‘চমত্‌কার’ আখ্যা পেতেই পারে।

 

রিভিউটি পাঠিয়েছেন

শিঞ্জন দাস, ব্যান্ডেল, কলকাতা

এখন আপনার রিভিউ প্রকাশিত হতে পারে আনন্দলোক-এ। সিনেমা দেখে
চটপট লিখে ফেলুন রিভিউ আর ইমেল করুন

[email protected]