magazine_cover_12_april_18.jpg

Tolly News

অতিপ্রাকৃতে গার্গী

‘অকাল্ট’ বলতে কী বুঝি আমরা? প্যারানরমাল বা স্পিরিচুয়াল কিছু ভাবনা-চিন্তা, প্র্যাকটিস… এ পৃথিবীর বাইরের, আত্মিক জগৎ নিয়ে পড়াশোনা। তাই তো? এ নিয়েই ছবি ‘কুয়াশা যখন’। পরিচালক জুটি মীনাক্ষী-অভিষেক অবশ্য পরিষ্কার করে দিলেন, এ ছবি মোটেই ভয়ের নয়। প্যারানরমাল সবকিছুকে ‘হরর’ বলে দাগিয়ে দেওয়ার যে রীতি আছে, মীনাক্ষী তারই বিরুদ্ধে। তিনি নিজে অকালটিস্ট। তাঁর বক্তব্য, বাংলাতে তো বটেই, যে বিষয় নিয়ে তাঁরা ছবি করছেন, তা ভারতীয় সিনেমাতেই ক’টা হয়েছে ভাবার বিষয়। ‘‘আসলে অকাল্ট নিয়ে মানুষের মধ্যে অত্যন্ত ভুল ধারণা প্রচারিত হয়েছে। আমরা সত্যিটা বলতে চাই। ডকু বানালে আর কে দেখবে? তাই একটা গল্প তৈরি করলাম।’’ ‘হরর’ বা ‘প্যারানরমাল’ এলিমেন্ট থাকলেও, আদতে ‘কুয়াশা যখন’ নাকি একটি প্রেমকাহিনি। আর সেই ছবিতে সবচেয়ে আশ্চর্যের চরিত্রটি গার্গী রায়চৌধুরীর। মীনাক্ষী বলছিলেন, গার্গীকে কখনওই এমন কোনও চরিত্রে ভাবা যায় না। তবে সেটি ঠিক কী, তা বলতে কিছুতেই রাজি হলেন না। ‘‘আসলে কুয়াশা সরে গেলে ‘কুয়াশা যখন’-এর কোনও মানেই আর থাকে না,’’ বলছিলেন পরিচালক। ছবিতে গার্গী ছাড়াও অভিনয় করছেন মানালি, নবাগত ঋষভ, অনিন্দ্যপুলক বন্দ্যোপাধ্যায়, শতফ ফিগার এবং ‘ভূমি’-খ্যাত সৌমিত্র রায়। দেখা যাক, আদতে ব্যাপারটি কী হয়! ছবিতে অভিনেতাদের লুক প্রথমবার প্রকাশিত হল আনন্দলোক-এ!

ধৃতিমান গঙ্গোপাধ্যায়

Kuasha Jokhon | Gargee Roychowdhury | Shataf Figar | Anindya Banerjee | Soumitra Roy | Manali