magazine_cover_27_november_17_02.jpg

Tolly News

প্রোফেসর শঙ্কু হবেন ধৃতিমান!

দিনকয়েক আগের কথা। আনন্দলোক-এর সঙ্গে একটি একান্ত ইন্টারভিউয়ে সন্দীপ রায় প্রথম জানিয়েছিলেন, তিনি পরবর্তী ছবি হিসেবে প্রোফেসর শঙ্কুকে পরদায় আনার কথা ভাবছেন। এমনকী, অনেক চিরাচরিত ছক ভাঙবেন বলেও জানিয়েছিলেন তিনি। কী বলেছিলেন তিনি সেই ইউন্টারভিউয়ে? শুনে নিন…

Dhritiman-sandip-ray-big

অবশেষে প্রোফেসর শঙ্কু পরদায় আসছে তা হলে?
অবশেষে… বেশ অনেকদিন ধরেই প্ল্যান ছিল শঙ্কু করার। কিন্তু সায়েন্স ফিকশনকে এই সময় পরদায় আনতে হলে যে পরিমাণ বাজেট এবং স্কেল দরকার, সেটা ভেবে পিছিয়ে আসছিলাম। রেডিওতে নাটক অবশ্য আগে হয়েছে… কিন্তু সিনেমা করতে গেলে… ফলে ওই ‘লক’ করার ব্যাপারটা একেবারেই হচ্ছিল না। আর বিদেশি লোকেশন, বিদেশি কাস্টিং… এসব নিয়েও ভাবতে হচ্ছিল। যাক, এবার অন্তত ভাবতে পেরেছি।

কোন গল্প নিয়ে ছবিটা করার কথা ভাবছেন…
‘নকুড়বাবু ও এল ডোরাডো’ নিয়েই ছবিটা করার কথা ভেবেছি। নামটা অবশ্য হবে, ‘শঙ্কু ও এল ডোরাডো’।

ধৃতিমান চট্টোপাধ্যায়কেই তো শঙ্কু হিসেবে পছন্দ করেছিলেন বলে শুনেছি…
সুন্দরদা (ধৃতিমান) এখনও আমার পছন্দ। আসলে ওঁর চোখের মধ্যে ভীষণ পাওয়ারফুল একটা ব্যাপার রয়েছে। ফলে শঙ্কু হিসেবে খুব সহজেই বিশ্বাসযোগ্য হবেন। তাই পরদায় শঙ্কু হিসেবে উনিই আসবেন।

শুটিংয়ের বেশিরভাগ অংশ তো বিদেশেই হবে…
আসলে শঙ্কু করার ক্ষেত্রে লজিস্টিক্সের সমস্যা তো ছিল। এখন বিদেশের কথা তো মাথায় রাখতেই হচ্ছে। এমনকী, কলকাতাতেও খুব বেশি শুটিং থাকবে না। গিরিডিতে তো শঙ্কু কোনওদিনই বেশি সময় থাকেননি! মুম্বই, চেন্নাইতেও শুটিংয়ের কথা ভেবে রেখেছি।

একটা সময় শোনা গিয়েছিল, শঙ্কু করলে ইংরেজিতে করবেন…
এই সমস্যাটা তো থাকছেই। বাবা আসলে শঙ্কুতে এমন ইন্টারন্যাশনাল একটা ইমেজ দিয়েছিলেন… এখনও বলছি, শঙ্কু বাংলা-ইংরেজি মিশিয়েই হবে। তবে আর একটা চিন্তা আমার মাথায় আছে। কলকাতা বা মাল্টিপ্লেক্সে দুটো ভাষায় করে, সাবটাইটেল দেব। আর শহরতলীতে একটা বাংলা ডাব়্‌ড ভার্শন দেব। ফলে দু’রকমের দর্শকের কাছেই পৌঁছতে পারব।

বাজেট তো তা হলে অনেকটাই বেড়ে গেল.. সঙ্গে গ্রাফিক্সের কাজও থাকবে…
নিশ্চয়ই। শঙ্কুর ক্ষেত্রে এটাই তো অনেক ভেবেচিন্তে করতে হচ্ছে। আসলে এখন ছোটরা এতরকমের জিনিস দেখে ফেলেছে আর পড়ে ফেলেছে যে, একটু এদিক ওদিক হলে আর জমবে না। ওরা ঠিক ধরে ফেলবে।

Dhritiman Chatterjee | Professor Shonku | Sandip Ray

সায়ক বসু

(বিস্তারিত সাক্ষাৎকার পড়তে চোখ রাখুন আনন্দলোক-এর ১২ ডিসেম্বর সংখ্যায়)