Category Archives: review list

Shabar-poster

আসছে আবার শবর

এ শবর অন্যরকম, এ শবর আলাদা। তবে ভাল কিন্তু বলতে পারছি না। কোথাও গিয়ে আগের শবরকে মন খোঁজে। কলকাতা শহরে হঠাৎ-ই খুন হয় কয়েকজন তরুণী। তদন্তে নামে কলকাতা গোয়েন্দা বিভাগের অফিসার শবর দাশগুপ্ত (শাশ্বত)। এরপর গল্প ঘোরে অন্যদিকে। চন্দননগরের বড়লোক বাড়ির মেয়ে রিঙ্কু (দিতি) ভালবাসে তার চেয়ে দ্বিগুণ বয়সী বিজয়কে (ইন্দ্রনীল)।

notty-k-poster

ইনস্পেক্টর নটি কে

নটবর খাঁড়া (জিৎ) চমকাইতলার বিখ্যাত খাঁড়া পরিবারের ছেলে, যে পরিবারের সব পুরুষই পুলিশের খোচর হয়ে জীবিকা নির্বাহ করেছে। কিন্তু সে চায় ইনস্পেক্টর হতে। তাই ইতালি গিয়ে পুলিশ সুপারের ব্যক্তিগত কাজ করে দিয়ে সে ইনস্পেক্টর হওয়ার ফন্দি আঁটে।

amijoychaterje-poster

আমি জয় চ্যাটার্জি

মনোজ মিশিগানের এই ছবিটির কথা বলতে গেলে শুরুতেই বলতে হয়, এর সমস্ত শক্তি নিহিত এর ভাবনায়। যে নামই দিই না কেন, সাধারণ ভাবে এই কাহিনি ‘এক্সটাসি’-র। অথবা নিজেকে খোঁজার একটা প্রবল প্রচেষ্টা… নতুন করে খুঁজে নেওয়া নিজের পবিত্রতা।

Mukkabaaz-poster

মুক্কাবাজ়

স্ট্যালন-সলমন-দেব-দের দুনিয়ায় মাঝে-মাঝে বিনীতকুমার সিংহরা চমকে দেন। সৌজন্যে, অনুরাগ কাশ্যপ। ‘মুক্কাবাজ়’ ছবিটিতে সাধারণ স্পোর্টসমুভির প্রেডিকটেবিলিটি নেই, নেই ‘এ তো জিতবেই’ জাতীয় রূপকথা। আসলে ঠিক স্পোর্টসমুভি তো নয় এ ছবি। ছবির প্রধান চরিত্র ‘মুক্কেবাজ়’ বা বক্সার নয়, ‘মুক্কাবাজ়’ বা যোদ্ধা। রিংয়ের লড়াই সে হেরে যেতে বাধ্য হয়।

ray-poster

রে

ইদানীংকালে দু’-একটি ছবির পোস্টার দেখে মানুষ একটু মিসগাইডেড হয়ে থাকতে পারেন। ‘রে’-ও তেমনই। পোস্টার দেখেই সবাই গেল-গেল করছিলেন। বলেছিলেন, শাশ্বত কেন হবেন সত্যজিৎ? চেহারার মিল ইত্যাদি নিয়েও হাজার কথা বলা হয়েছে।

Mayurakkhi-poster

ময়ূরাক্ষী

‘অংশুমানের ছবি’ থেকে ‘রূপকথা নয়’, পরিচালক অতনু ঘোষের সব ছবিতেই মানুষের সম্পর্কের একটা নতুন দিক খুঁজে পাওয়া যায়। আজকের ভাঙা-গড়ার পৃথিবীতে সেই সম্পর্কের আঘ্রাণ মন ভাল করে দেয়। তাই অতনুর ছবি দেখে হল থেকে বেরনোর পর একটা রেশ থেকেই যায়।

amazon-poster

অ্যামাজ়ন অভিযান

আত্মবিশ্বাস জুগিয়েছিল ‘চাঁদের পাহাড়’-এর সাফল্য আর সেই আত্মবিশ্বাসে ভর করেই ‘অ্যামাজ়ন অভিযান’-এর দুঃসাহস দেখাতে চেয়েছিলেন পরিচালক কমলেশ্বর মুখোপাধ্যায়। সেই কাজে তিনি কতটা সফল হন, তা চাক্ষুষ করতে মুখিয়ে ছিল বাঙালি দর্শক। প্রথম বড় চ্যালেঞ্জ ছিল নিঃসন্দেহে গল্প লেখার কাজটি।

Tiger-Zinda-Hai-poster

টাইগার জ়িন্দা হ্যায়

এই না হলে সলমন? বলুন না, সলমন খানকে কি ফ্লপ-টপ মানায়? তিনি পরদায় আসবেন, সিটিতে হল ভরে যাবে, ঝাঁ চকচকে সিনেমা তাঁর স্টারডমে ভর করে বক্স অফিস সাগর পার করবে, এটাই তো আমাদের চেনা ওয়র্ল্ড অর্ডার! অস্ট্রিয়ার বরফে তাঁর কাঁটা পরানো জুতোর প্রথম পদক্ষেপই বলে দিচ্ছিল, ‘কারেক্ট আছে’! তবে ‘টাইগার জ়িন্দা হ্যায়’-এর ক্ষেত্রে বলার, এ ছবি একা সলমনের স্টারডমের উপর ভরসা করেনি।

samantaral-poster

সমান্তরাল

কলকাতার বুকে চট্টোপাধ্যায় পরিবারের গল্পটা বড্ড চেনা হয়েও অচেনা। কারণ, এমন সমস্যা বুকে নিয়ে বেরাচ্ছে অনেক পরিবারই। প্রাণপণে গোপন করে চলেছে একটা কঠিন সত্যকে। সেই সত্য কখনও হঠাৎ করে বেরিয়ে আসে খবরের কাগজের পাতায়। কখনও বা পরিবারটি আজন্ম গোপন সত্যটি শেষ করে দেয় একটি জীবনকে। গল্পটা শুরু হয় অর্ককে (ঋদ্ধি) দিয়ে।

tumari-sulu-poster

তুমহারি সুলু

বিদ্যা প্রমাণ করলেন, তিনি ধরা-ছোঁয়ার বাইরে, তিনি অপ্রতিরোধ্য, তিনি অভিনয় বিষয়টিকে গুলে খেয়েছেন। পাঠক আপনি নিশ্চয় বিদ্যার প্রতি আমার এই বাঁধনছাড়া আবেগে খানিকটা বিরক্তই হয়েছেন।