Category Archives: review list

uran-poster

উড়ান

বিষয়টি ভালই ভেবেছিলেন পরিচালক, কিন্তু প্রকাশে অপরিণত মনোভাব দেখালেন যে! পৌলমী (শ্রাবন্তী) বাড়ির একমাত্র রোজগেরে। কিন্তু কোনও সম্মান বা ভালবাসা সে পায় না।তার স্বপ্ন গান নিয়ে কিছু করার, গায়িকা হওয়ার। কিন্তু সুযোগ পায় না।দুঃসহ এই পরিস্থিতিতে শিক্ষিকার চাকরি পায় সে। চলে আসে রাজারপুরে।

chhapak-poster

ছপাক

‘ছপাক’ শব্দটা হিন্দি ভাষায় জল বা রং ছেটানোর সঙ্গে কী সুন্দর মজার ছলে জুড়ে যায়। বিশেষত, গুলজ়ারের লেখা গানে তো এই শব্দটা বহুলব্যবহৃত। কিন্তু তাঁরই মেয়ে, মেঘনা গুলজ়ার পরিচালিত ‘ছপাক’ ছবিটি দেখার পর বোধহয় ‘মজার ছলে’ এই শব্দটি ব্যবহার করতে জিভ জড়িয়ে আসবে।

ashur-big-poster

অসুর

ট্রেলার দেখে নিশ্চই বুঝতে পেরে গিয়েছেন, এই সিনেমার গল্প কি নিয়ে। বছর কয়েক আগে কলকাতায় হইহই পড়ে যাওয়া সবচেয়ে বড় দুর্গা… মনে আছে, কিভাবে এই আশ্চর্য সৃষ্টি দেখার জন্য জড়ো হয়েছিলেন কাতারে কাতারে মানুষ? পদপিষ্ট হওয়ার সম্ভাবনা তৈরি হওয়ায় মাঝপথে পুজো বন্ধ করে দিতে বাধ্য হয় কলকাতা পুলিশ।

robibar-big-poster

রবিবার

শুরুতেই বলি, এই গল্প ভীষণভাবে চেনা, আবার অচেনাও। কারণ অতনু খুব সুন্দরভাবে একটি ভাঙা সম্পর্কের বন্ধনের সঙ্গে দর্শকের পরিচয় ঘটিয়েছেন। অসীমাভ এবং সায়নী প্রাক্তন প্রেমিক, প্রেমিকা। অনেকদিন পরে তাদের দেখা হয় এক রবিবার।

sajbati-poster

সাঁঝবাতি

এই ছবিতে একটা মস্ত বড় ছাদ রয়েছে, ছাদের গা লাগোয়া কৃষ্ণচূড়া গাছ। আর একটা বাড়ি রয়েছে যে বাড়ির ইঁট কাঠ পাথরে লেগে রয়েছে সুলেখা মিত্র ( লিলি চক্রবর্তী)-র সংসারের গল্প৷

প্রোফেসর শঙ্কু ও এল ডোরাডো

ঠিক যেমনটি ভাবা হয়েছিল, তেমনটাই হল। সত্যজিৎ রায়ের লেখা ‘নকুড়বাবু ও এল ডোরাডো’কে দুর্দান্তভাবে বড় পরদায় আনলেন সন্দীপ রায়। আর প্রথম শঙ্কু যেহেতু, তাই মুন্সিয়ানার সঙ্গে শঙ্কুর ডায়েরির ইতিহাসটিকেও ঢুকিয়ে দিলেন…

review-kedara-poster

কেদারা

একটি মানুষ একা, তাঁর সঙ্গী কয়েকটি কণ্ঠ। কোনওটাই তাঁর নিজের নয় আবার নিজেরও! নরসিংহ (কৌশিক) পেশায় একজন হরবোলা। স্বভাবে অত্যন্ত শান্ত, সাত চড়ে রা না কাড়া এক ব্যক্তি। পাড়ায় ছেলেদের দ্বারা প্রতি মূহূর্তে অপমানিত হন। বাড়িতে একা থাকেন। স্ত্রী ছেড়ে চলে গিয়েছেন।

password-poster

পাসওয়ার্ড

প্রথমেই ধন্যবাদ প্রযোজক দেবকে এমন একটি বিষয় নির্বাচনের জন্য। চিত্রনাট্যে রসদ ছিল অনেক। ডার্ক নেট, সাইবার ক্রাইম, এথিক্যাল হ্যাকিংয়ের সঙ্গে মিশেছিল ভোপাল গ্যাস চেম্বারের মতো দুর্ঘটনাও। একটি ভাল থ্রিলার তৈরির চেষ্টাও ছিল।

war-poster

ওয়র

না বিচারটা সেরেই ফেলা যাক। এই ছবি শুরুর আগে দুই প্রতিপক্ষ ছিল। এক হৃতিক রোশন দুই দর্শক। কোন রূপে দর্শকের কাছে ধরা দেবেন হৃতিক? তিনি কি অভিনয়টুকু সেরেই সরে পড়বেন (তবে ট্রেলার কিন্তু আশা জাগিয়েছিল) নাকি দর্শকের হৃদয় হরণ করবেন নিজের রূপ দিয়ে, শরীর চালনা দিয়ে।

Satyanweshi-poster

সত্যান্বেষী ব্যোমকেশ

নাহ, সায়ন্তন ঘোষাল যে সিনেমাটা মন্দ বানান না, এ কথা আরও একবার বোঝা গেল, সৌজন্যে ‘সত্যান্বেষী ব্যোমকেশ’। ব্যোমকেশ এর আগে পরদায় নানা রূপে, নানা ভাবে এসেছে।