Category Archives: music news

ছবি তুলে হাসির পাত্র

khali-big ছবিটি দেখছেন? দ্য গ্রেট খলির সঙ্গে দেখা করে যে পরিমাণ আনন্দ পেয়েছেন আদনান সামি, ছবি তুলে তেমনটা পেলেন না। পাবেন কী করে? এখন যে সোশ্যাল নেটওয়ার্কিং সাইটে ট্রোলড হতে হচ্ছে আদনানকে! আসলে অমৃতসরে খলিকে দেখে আহ্লাদ সামলাতে পারেননি আদনান। khali-big2 গিয়ে বেশ কিছুক্ষণ খোশগল্প করেন। খলিকে তাঁর ‘লভলি বয়’ বলেও মনে হয়। কিন্তু সমস্যা হয় সেলফি তোলার সময়। একফ্রেমেই তো আঁটতে পারেননি খলি এবং আদনান। পাহাড়সম খলির পাশে তাঁর হাইট বেশ কম লাগছিল। আর সেটা সোশ্যাল নেটওয়ার্কিং সাইটে দিতেই হাসির পাত্র হন আদনান। বেশিরভাগ নেটিজেনেরই বক্তব্য, ছবিটা তুলতে গেলেন কেন? আর তুললেনই যদি একটা চেয়ারের উপর দাঁড়িয়ে পড়লেন না কেন?

Adnan Sami Khali

ফের গোয়েন্দা রূপঙ্কর!

rupankar গত বছরই ‘মণিকাঞ্চন’ নামে একটি টেলিফিল্মে গোয়েন্দার ভূমিকায় অবতীর্ণ হয়েছিলেন তিনি। জনপ্রিয় গায়ক রূপঙ্কর বাগচীর সেটাই ছিল অভিনেতা হিসেবে ডেবিউ। সেখানে তাঁর অভিনয় প্রশংসিতও হয়। কিন্তু তারপর রূপঙ্কর সন্দিহান ছিলেন, গানের ব্যস্ততার জন্য আর অভিনয়ে সময় দিতে পারবেন কি না। তা ছাড়া সেটা ছিল শখও। তবে এবারও সেই আশঙ্কা কাটল। কারণ এবার সিন সিস্টার নামে একটি সিনেমায় অভিনয় করছেন তিনি। আর এবারও গোয়েন্দা। হ্যাঁ, রূপঙ্করের গোয়েন্দা-হ্যাংওভার কাটছে না। শুভব্রত চট্টোপাধ্যায় পরিচালিত এই ছবিতে দেবলীনা দত্ত মুখ্য ভূমিকায় অভিনয় করছেন, দ্বৈত চরিত্রে। সাইকোলজিক্যাল এই থ্রিলারে নিজের চরিত্রের কথা বলতে গিয়ে রূপঙ্কর জানিয়েছেন, ‘‘‌এখানে আমার চরিত্রটা একেবারে প্রফেশনাল গোয়েন্দার নয় ঠিক। তদন্তকারী পুলিশ অফিসার। তবে হ্যাঁ, গোটা ছবির রহস্য উন্মোচনে আমাকে জড়িয়ে থাকতে হবে। প্রথমে ভেবেছিলাম, ছবিটা করব কি না। তারপর গল্পটা এত ভাল লেগে গেল… দর্শক যদি ফের আমার অভিনয়ে খুশি হন, তা হলে তো কথাই নেই।’’

Rupankar Bagchi

সায়ক বসু

প্রাচ্য-পাশ্চাত্যের ঈশিতা

Isheeta-chakrabarty-big ‘মাছ মিষ্টি অ্যান্ড মোর’-এর ‘আমি যদি ভিড় হয়ে যাই’ বা ‘এবার শবর’-এর ‘নেই রাত’ গানের শিল্পী ঈশিতা চক্রবর্তীর ব্যাপারে অনেকেই হয়তো জানেন না, জ্যাজ় ঘরানার গান তাঁকে জনপ্রিয় করলেও তিনি ছোটবেলা থেকেই হিন্দুস্থানী ক্লাসিক্যাল মিউজ়িক শিখেছেন। অর্থাৎ, শিকড়টা শাস্ত্রীয় সঙ্গীতেই। ঈশিতা বহুদিন ধরে মুম্বইতে জ্যাজ় মিউজ়িক নিয়ে তাবড় মিউজ়িশায়নদের সঙ্গে কোলাবোরেশন করেছেন। এমনকী, বলিউড মিউজ়িকেও তাঁর হাতেখড়ি হয়েছে ‘সুলতান’-এর ‘বেবি কো বেস পসন্দ হ্যায়’ গানের মাধ্যমে। কিন্তু শিকড়ের টান আলাদা। তাঁর নতুন সিঙ্গল ‘সাওয়ন কী ঋতু’ সেই শিকড়ের প্রতিই শ্রদ্ধার্ঘ্য কিন্তু একটু অন্যরকমভাবে। এই সিঙ্গলে বিখ্যাত কাজরী ‘সাওয়ন কী ঋতু’-কে তিনি জ্যাজ় অ্যারেঞ্জমেন্টের মাধ্যমে পরিবেশন করেছেন। একই সঙ্গে শাস্ত্রীয় সঙ্গীতের প্রতি ঋণ স্বীকার করা এবং বর্তমান জ্যাজ়ের প্রতি ভাসবাসা জানানোর এর চেয়ে ভাল উপায় আর কী-ই বা হতে পারে!

Isheeta chakravarty | sawan ki ritu

অংশুমিত্রা দত্ত

মুখ খুললেন লেডি গাগা

Lady-Gaga-Madonna-Feud-big ম্যাডোনাকে বরাবরই অনুপ্রেরণা হিসেবে মেনেছেন লেডি গাগা। কিন্তু ম্যাডোনা? তাচ্ছিল্যের বেশি কিছুই দেননি! আসলে হয়েছে কী, ম্যাডোনার ‘বর্ন দিস ওয়ে’ গানটির সঙ্গে গাগার ‘এক্সপ্রেস ইয়োরসেল্‌ফ’ গানটির অদ্ভুত সাদৃশ্য খুঁজে পেয়েছে সঙ্গীতদুনিয়া। আর তারপরই গাগার গানকে গান বলেই মানতে নারাজ ম্যাডোনা। ‘লঘু’, ‘অধঃপতনের গান’ ইত্যাদি বলে গালমন্দ করেছেন। এমনকী, গাগার সঙ্গে কথা পর্যন্ত বলেন না। এসব নিয়ে সম্প্রতি নিজের ডকুমেন্টরি ‘গাগা: ফাইভ ফুট টু’-তে মুখ খুলেছেন লেডি। ম্যাডোনা যে তাঁর ক্ষোভ গাগাকে না জানিয়ে মিডিয়াতে কাদা ছোড়াছুড়ি করেছেন, তাতে গাগা ব্যথিত। তাঁর কথায়, ‘আমি ম্যাডোনাকে শ্রদ্ধা করতাম, এখনও করি। তা তিনি আমার গানকে যতই তাচ্ছিল্য করুন না কেন। আমি নিউ ইয়র্কে থাকি, জাতে ইতালিয়ান। আমরা সব কথা মুখের উপর বলি। তাই ভেবেছিলাম, ওঁর কিছু খারাপ লাগলে আমাকে সরাসরি বলবেন। যাক গে…’ ইত্যাদি।

lady gaga | Madonna | born this way Express yourself

ফের একসঙ্গে

joy-and-lopamudra-big2 মাসখানেক আগে ‘আকাশ’ নামে একটি রবীন্দ্রসঙ্গীতের অ্যালবাম প্রকাশ করেছিলেন, যাতে একসঙ্গে কাজ করেছিলেন জয় সরকার এবং লোপামুদ্রা মিত্র। দীর্ঘ আট বছর পরে সেটাই ছিল তাঁদের প্রথম একসঙ্গে কাজ। আসলে জয় এবং লোপামুদ্রকে নিয়ে অভিযোগ একটাই, আলাদা আলাদাভাবে বিভিন্ন প্রজেক্ট নিয়ে দারুণ ব্যস্ত তাঁরা। কিন্তু তাঁদের একসঙ্গে কাজ করতে দেখা যায় না। আর এটা নিয়ে তাঁরা দু’জনেই একে অপরকে দোষ দিয়ে থাকেন। ‘ও আমার সঙ্গে কাজ করতে চায় না’ টাইপের। যাই হোক, ‘আকাশ’ মুক্তির পরও জয়-লোপা জোর দিয়ে বলতে পারেননি, আবার কবে একসঙ্গে কাজ করবেন তাঁরা। ফলে মনে হচ্ছিল, আবার দীর্ঘ সময় অপেক্ষা করতে হবে বুঝি। কিন্তু না, সেটা হল না। আনন্দলোক-এর কাছে জয় সরকার ফাঁস করলেন, একটি অ্যালবামের জন্য ফের একত্রিত হবেন তিনি এবং লোপা। তবে এবার এটি একটি আধুনিক বাংলা গানের অ্যালবাম। জয় জানালেন, ‘‘অনেকদিন ধরেই কিছু নতুন গান আমাদের কাছে পড়ে ছিল। পুরনো গান কিছু। কিন্তু লোপা সময় দিতে পারছিল না। ‘আকাশ’ মুক্তির পরে এত প্রশংসা পাচ্ছিলাম যে, কনফিডেন্সটা বেড়ে গিয়েছিল। এবার মনে হল, গানগুলোকে আর ফেলে রাখা ঠিক হবে না। লোপাও এ ব্যাপারে আমার সঙ্গে একমত। ফলে আমরা ঠিক করেছি, খুব তাড়াতাড়ি গানগুলোর রেকর্ড করিয়ে ফেলব। মিউজ়িক ভিডিও-ও। তার আগে আমাদের নিজেদের কিছু কাজ আছে। সেগুলো শেষ করে নিই।’’

Joysarkar | #lopamudra | #newbengalialbum

সায়ক বসু

ফিরছে মহীনের ঘোড়াগুলি

mohiner-ghoraguli-big0000 অনেকদিন ধরে একটা ইচ্ছে লালন করে আসছেন তিনি। তাঁর বাবা গৌতম চট্টোপাধ্যায়ের ‘মহীনের ঘোড়াগুলি’কে নতুন করে ফিরিয়ে নিয়ে আসার। কিন্তু নিজস্ব ব্যান্ড ‘লক্ষ্মীছাড়া’ এবং অন্যান্য প্রজেক্ট নিয়ে বেশ ব্যস্ত ছিলেন গাবু ওরফে গৌরব চট্টোপাধ্যায়। মাস ছয়েক আগে আনন্দলোক-এর ‘ঝংকার’ বিভাগেই আপনারা পড়েছিলেন গাবুর এই ইচ্ছের কথা। এবার খবর, নিজের এই ইচ্ছে চরিতার্থ করার ব্যাপারে অনেকখানি এগিয়ে গিয়েছেন গাবু। mohiner-ghoraguli-big নিজস্ব একটা লাইন আপ তৈরি করছেন এবং শোনা গিয়েছে, তিনি নাকি গৌতমের সঙ্গে যুক্ত পুরনো ব্যান্ড মেম্বরদের সঙ্গেও যোগাযোগ করেছেন। যাতে বিরাট কনসার্টের মাধ্যমে ‘মহীনের ঘোড়াগুলি’র নস্টালজিয়াকে ফিরিয়ে আনা যায়। গোটা দেশজুড়ে কনসার্ট করার ইচ্ছে আছে গাবুর। ফলে মহীন-ভক্তরা আশায় বুক বাঁধতে পারেন…ইতিহাসের সাক্ষী হতে।

Gabu | Gourav Chatterjee | Goutam Chatterjee | Mohiner Ghoraguli

মুম্বইতে রাজা

হঠাৎ করেই বেশ ব্যস্ততা বেড়ে গিয়েছে রাজা নারায়ণ দেবের। বাড়ারই কথা। কারণ নিয়মিত কলকাতা-মুম্বই যাতায়াত করতে হচ্ছে। হ্যাঁ, ঠিকই শুনেছেন। এখন মুম্বইতে নিজস্ব সেটআপ তৈরি করে ফেলেছেন রাজা। অভিনেত্রী বিদিতা বাগের পরবর্তী ছবির আবহ সঙ্গীতের কাজ করছেন তিনি। লোখন্ডওয়ালায় রাজার একটা ফ্ল্যাট আছে। কিন্তু এখন তিনি সেট আপ তৈরি করেছেন তাঁর এক বন্ধুর বাড়িতে, ভারসোভায়। তবে এদিকে যে তাঁর বাংলায়ও কাজ কমেছে, তেমনটা নয়। কলকাতা ইন্টারন্যাশনাল ফিল্ম ফেস্টিভ্যালেই তাঁর কাজ করা তিনটি ছবির ওয়র্ল্ড প্রিমিয়ার হচ্ছে। দু’টি বাংলা ছবি, ‘বিলের ডায়েরি’ এবং ‘বারান্দা’ এবং একটি কোঙ্কনী ছবি ‘কে সেরা সেরা’। তবে খুশির মধ্যেও দুঃখ একটাই, রাজা হয়তো ফিল্ম ফেস্টিভ্যালে নিজের ছবিগুলো দেখার সময় থাকতে পারবেন না।

Raja Narayan Dev

সায়ক বসু

চন্দ্রবিন্দুর দশম অ্যালবাম

Chandrabindoo-big বেশ কয়েকবছর হল বাংলা ব্যান্ড ‘চন্দ্রবিন্দু’ নিজেদের নতুন কোনও অ্যালবাম প্রকাশ করেনি। ব্যান্ড সদস্যরা ভক্তদের শুধু এই বলেই আশ্বস্ত করছিলেন, অ্যালবাম রেকর্ডিংয়ের কাজ চলছে। খুব তাড়াতাড়ি মুক্তি পাবে। কিন্তু সেই মুক্তি যে কবে হবে… আসলে অনিন্দ্য চট্টোপাধ্যায়, উপল সেনগুপ্ত, চন্দ্রিল ভট্টাচার্যরা সিনেমা এবং অন্যান্য কাজ নিয়ে এতটাই ব্যস্ত যে, অ্যালবামের দিকে সেভাবে মন দিতে পারছিলেন না। এদিকে ‘চন্দ্রবিন্দু’র অ্যালবাম হেলাফেলা করে বেরোবে, সেটা তো হতে পারে না। ফলে সময় নিচ্ছিলেন তাঁরা। প্রথমদিকে মুক্তির সময় নিয়ে একটা আভাস দিলেও উপল সেনগুপ্ত পরে বলেছিলেন, ‘‘অ্যালবাম মুক্তির সময় নিয়ে আর একটাও কথা বলব না। কারণ এভাবে আভাস দিতে গিয়ে আমরা মিথ্যেবাদী প্রমাণিত হচ্ছি। রেকর্ডিংও সময়মতো হচ্ছে না। ফলে যখন শেষ হবে, তখনই বলব।’’ যা-ই হোক, এবার বোধ হয় সময় এসেছে। শোনা যাচ্ছে, রেকর্ডিং প্রায় শেষ। ‘চন্দ্রবিন্দু’ নিজেদের দশম অ্যালবাম নিয়ে প্রায় তৈরি। কিন্তু অ্যালবামের নাম কী হবে? সেই নিয়েও জল্পনার শেষ নেই। অনেক ভক্তই সোশ্যাল নেটওয়ার্কিং সাইটে পছন্দের নাম বলতে শুরু করে দিয়েছে। কিন্তু ‘চন্দ্রবিন্দু’র অ্যালবামের যে-কোনও নাম দিলে তো হবে না। তাই আগ্রহ বাড়ছিলই। অবশেষে একটা আঁচ দিলেন ব্যান্ডের অন্যতম সদস্য অনিন্দ্য চট্টোপাধ্যায়। বললেন, ‘‘অ্যালবামের নাম নিয়ে আমাদের মধ্যেও আলোচনা চলছে। এখনও কিছু ঠিক হয়নি। শুধু বেশ কিছুদিন আগে আমি একটা নাম সাজেস্ট করেছিলাম, ‘টেন থিটা’। গাণিতিক সঙ্কেত ‘ট্যান থিটা’ একটু পালটে নিয়ে। এবার এই নামটা থাকবে কি না, জানি না। দেখি, কী ঠিক হয়।’’ তবে অনিন্দ্যর দেওয়া নামটা কিন্তু খারাপ নয়। কারণ এই নামটাকে আপনারা ‘টেন থিটা’ বলতে পারেন আবার উচ্চারণ একটু পাল্টে ‘টেন্‌থ এটা’ও বলতে পারেন। দশম অ্যালবাম বলে কথা! যা-ই হোক, নাম চূড়ান্ত হলে তো আমরা আপনাদের জানাবই। তার আগে আপনারাও কিছু নাম সাজেস্ট করুন না প্লিজ়! চন্দ্রবিন্দু এবং আনন্দলোক-এর সঙ্গে থাকুন…

Chandrabindoo | Anindya Chatterjee | Upal Sengupta

সায়ক বসু

বিরুদ্ধাচারণ বিশাল-সুজয়ের

vishal-dadlani-sujoy-ghosh-big নতুন সিনেমায় পুরনো হিট গান ব্যবহার এখন একটা ট্রেন্ড হয়ে দাঁড়িয়েছে। এবার এর বিরুদ্ধে একযোগে গলা ফাটালেন সুজয় ঘোষ এবং বিশাল দদলানী। কিছুদিন আগেই টুইটারে এই ট্রেন্ডের বিরুদ্ধে লেখেন সুজয়। কিশোর কুমারের গাওয়া একটি গান তাঁর কতটা খারাপ লেগেছে, সেটি জানিয়ে বলেন, এই ট্রেন্ড বন্ধের জন্য আইন প্রণয়ন করা উচিত। ক্লাসিক গানের এরকম ‘মৃত্যু’ মানা যায় না। সুজয়ের সেই টুইট রিটুইট করে এই সময়ের অন্যতম ব্যস্ত সুরকার বিশাল দদলানীও জানান, একেবারে একমত তিনি। এই ধরনের রিমেকে মূল গানের প্রতি কোনওরকম সম্মান দেখতে পান না তিনি। বিশালও চান এই ট্রেন্ড বন্ধ হোক।

পটা এবং সিধু একসঙ্গে?

potshidhu1 চারবছর হল, দু’জনের পথ আলাদা হয়ে গিয়েছে। পটা ওরফে অভিজিৎ বর্মন ‘ক্যাকটাস’ ছেড়ে চলে যাওয়ার পর থেকে ‘ক্যাকটাস’ নিজের মতো করে দল গুছিয়ে নিয়েছে বটে, কিন্তু সঙ্গীত ভক্তদের মধ্যে এরকম একটি আকুতি ছিল, কবে সিধু আর পটা একসঙ্গে হবেন। যদিও তাঁরা নিজের মুখে স্বীকার করেছেন, তাঁদের মধ্যে কোনও সমস্যা নেই, কিন্তু ‘ক্যাকটাস’ দলের অন্দরেই তাঁদের দু’জনের এক হওয়া নিয়ে বিরুদ্ধতা আছে। ইতিমধ্যে ‘পটা আর মরূদ্যান’ তৈরি করে পটাও আলাদা হয়ে গিয়েছেন। মাঝে অবশ্য শোনা গিয়েছিল, সিধু তাঁর নতুন ইন্ডিভিজুয়াল প্রোজেক্টে পটাকে নেবেন, কিন্তু সেটা পরিণত হওয়ার আগেই নতুন খবর। একটি নতুন প্রোজেক্টের জন্য, একটি গান সিধু এবং পটাকে একসঙ্গে গাইতে বলা হয়েছে। সিধু তাতে রাজি হয়েছেন বলেও খবর। অবশ্য তাঁরা দু’জন আলাদা আলাদা রেকর্ডিং করবেন বলেও খবর। যদিও প্রোজেক্টটি কী, সেটি এখনও জানা যায়নি। কারণ বিষয়টি কিছুক্ষণ আগেই ঘটেছে। পটা জানিয়েছেন, ‘‘আমার ম্যানেজারের কাছে এরকম একটি প্রস্তাব নিয়ে ফোন এসেছে বটে, কিন্তু তার বিন্দুবিসর্গ এখনও আমি জানি না। শুনেছি সিধুদা রাজি হয়ে গিয়েছেন। কিন্তু আমি রাজি হবে কি না, সেটা গানটা শুনে বলতে হবে। এর চেয়ে বেশি কিছু বলার মতো অবস্থায় আমি নেই। শুনেছি, গানটিতে নাকি আমরা দু’জন ছাড়া আরও কেউ থাকতে পারেন।’’ যাই হোক, বিষয়টি এখনও পরিণত হতে অনেকটা সময় বাকি, তার আগে আমরাই বক্তদের সুখবরটা দিয়ে দিলাম। এই জুটির একসঙ্গে আসাটা বড় খবর তো নিঃসন্দেহে।

Sidhu | Pota