Category Archives: music news

নতুন রূপে ‘বন্দে মাতরম’!

raghab-big আর কয়েক ঘণ্টা। তারপরই দেশজুড়ে ৭২তম স্বাধীনতা দিবস উদযাপনে মেতে উঠতে ভারতবাসী। বাদ থাকবেন না কেউই। তবে এই বিশেষ উৎসবের মুহূর্তে দেশজোড়া গানপ্রেমী মানুষকে একটি বিশেষ উপহার দিতে চলেছেন রাঘব চট্টোপাধ্যায়। বঙ্কিমচন্দ্র চট্টোপাধ্যায়ের ‘বন্দে মাতরম’ গানটিকে একেবারে নতুন আঙ্গিকে রেকর্ড করেছেন রাঘব। তৈরি করেছেন একটি মিউজ়িক ভিডিয়োও। সেটিই প্রকাশ করবেন আজ রাতে। তবে এই মিউজ়িক ভিডিয়োটিকে ‘সাধারণ’ ভাবলে চলবে না। কারণ এতে নৈহাটিতে অবস্থিত বঙ্কিমচন্দ্রের বাড়িটি দেখানো হবে। রাঘবের পাশাপাশি ভিডিয়োতে দেখা যাবে তাঁর দুই মেয়ে আহিরি এবং আনন্দীকেও। থাকবেন রাঘবের ছাত্রছাত্রীরা। আসলে এই গানটির সঙ্গে গভীর আবেগ জড়িয়ে আছে তো, তাই নতুনভাবে গানটি পরিবেশন করে সকল বয়সের মানুষের সঙ্গে নিজেকে জড়াতে চাইছেন রাঘব।

Raghab Chatterjee | Vande Mataram

কানাডার ব্যান্ডের সঙ্গে সুরজিতের গান…

Surojit-big এক দেশ থেকে অন্য দেশে গানের বহমানতার কথা আমরা অনেক সময়ই বলি। বাংলার মাটির গান ইউরোপ বা অস্ট্রিয়ায় লোকসঙ্গীতের সঙ্গে অনেক সময়ই মিশে গিয়েছে। সংস্কৃতি এবং ভাষার বিভেদ সত্ত্বেও সুর মিলিয়ে দিয়েছে দুটো দেশকে। তবে আগামী ২৩ অগস্ট কয়েক হাজার মানুষের সামনে সত্যি সত্যিই বাংলা গানকে অন্য গানের সঙ্গে মিশতে দেখা যাবে। আসলে কানাডার কিউবেকে একটি লোকসঙ্গীতের ব্যান্ড আছে, মোসাইক। ২৫ বছরের পুরনো… তাদের সঙ্গে বেশ কয়েকবছর আগে সুরজিৎ চট্টোপাধ্যায় যৌথভাবে একটি কাজ করেছিলেন। ‘ময়না রে’ এবং ‘ভ্রমর’ গানটি ‘মোসাইক’-এর যন্ত্রানুসঙ্গে পেয়েছিল নতুন মাত্রা। যাই হোক, এবার কানাডার অলমা শহরে ‘টাম টাম ম্যাকাডাম’ নামে একটি বিশ্ব সঙ্গীত উৎসব হচ্ছে। সেখানে উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে বাজাবে মোজ়াইক এবং সঙ্গে সুরজিৎ চট্টোপাধ্যায়। বলতে বাধা নেই, বাংলার মাটির গান সেদিন মিশবে কানাডার মাটির সঙ্গীতের সঙ্গে। সেই নিয়ে যথেষ্ট উত্তেজিত সুরজিৎ চট্টোপাধ্যায়। হাজার হোক, বাংলা গান নিয়ে বিশ্বের দরবারে যাওয়ার সুযোগ তো বারবার জোটে না।

Surojit Chatterjee | Mosaic | Canada | Tam | Tam Macadam world music festival

‘সহজ পরব’-এ মাতল কলকাতা

lopamudra-big সম্প্রতি দোহার ও লোপামুদ্রা প্রোডাকশনের যৌথ উদ্যোগে ও বোরোলীনের সহায়তায় রবীন্দ্রসদন ও শিশিরমঞ্চে অনুষ্ঠিত হল রুট মিউজ়িক ফেস্টিভ্যাল ‘সহজ পরব’। কালিকাপ্রসাদকে ছাড়া এই প্রথমবার অনুষ্ঠিত হল ‘সহজ পরব’। এই অনুষ্ঠান এই বছর চতুর্থ বর্ষে পদার্পণ করল। প্রথমদিকে এই পরবের নাম ভাবা হয়েছিল দোহার পরব। ভাবনাটা সম্পূর্ণতই ছিল কালিকাপ্রসাদের। এই পরবের অন্যতম আকর্ষণ ‘সহজ যাত্রা’। এই সহজ যাত্রায় একসঙ্গে খোল, খঞ্জনি, ধামসা, মাদল, ঢাক, একতারা, দোতারা, পটচিত্রের গানের এক অদ্ভুত সম্মিলিত সহাবস্থান থাকে। lopamudra-big2 এই সহজ যাত্রা মনে পড়ায় প্রাচীন বাংলার নগর-সংকীর্তনের আদলকে। এই প্রসঙ্গে লোপামুদ্রা মিত্র বলেন, ‘এই সহজ যাত্রার শেষে সংকীর্তনটা আরও ভালভাবে বোঝা যাবে। কালিকাপ্রসাদ বলতেন আমাদের জাতীয় সঙ্গীতের ‘জয় হে’, ‘জয় হে-র সঙ্গে কীর্তনের একটা মিল রয়েছে। তাই সেই কীর্তন দিয়ে শুরু করে কীর্তনেই শেষ করা হয়ে থাকে এই সহজ যাত্রা। এই অনু্ষ্ঠানে প্রাচীন লোকগানের আদলকেও রাখা হয়, যেমন মহারাষ্ট্র থেকে যাঁরা এসেছেন তাঁরা তাঁদের ট্র্যাডিশনাল যন্ত্র দিয়েই এখানে সঙ্গীত পরিবেশন করে থাকেন। এই বছর কোনও ক্ল্যাসিকাল অনুষ্ঠান রাখা হয়নি, যদিও পূর্ববর্তী অনুষ্ঠানে এখানে শিবকুমার শর্মাও অনুষ্ঠান করে গিয়েছেন। কেবল গান নয়, লোকায়ত নৃত্যও এই অনুষ্ঠানে পরিবেশিত হয়ে থাকে।’

Lopamudra Mitra | Dohar

মিকার বাড়িতে চুরি…

mika-bi শেষে কি রক্ষকই ভক্ষক হয়ে দাঁড়াল। এক্ষেত্রে অবশ্য যাকে চোর বলে সন্দেহ করা হচ্ছে, সে কোনওভাবেই মিকা সিংহের ‘রক্ষক’ নয়। তাঁর মিডিয়া ম্যানেজার। মিকার লাইভ শো-গুলো দেখত। আসলে হয়েছে কী, ওশিওয়াড়াতে মিকার বাড়ি থেকে প্রায় সাড়ে তিন লক্ষ টাকার গয়না এবং কিছু টাকা চুরি গিয়েছে। সেই সূত্রে পুলিশে অভিযোগও জানিয়েছেন মিকা। এদিকে সিসিটিভি ফুটেজ থেকে দেখা যাচ্ছে, অঙ্কিত ভাসান নামে মিকার ওই ম্যানেজার মিকার বাড়িতে ঢুকছে। এদিকে চুরির পর থেকে নাকি সেই লোকটির কোনও হদিশ পাওয়া যাচ্ছে না। ফলে স্বাভাবিকভাবেই সব সন্দেহ তার উপরে গিয়ে পড়েছে। যাই হোক, রহস্য সমাধান হলে না হয় দেখা যাবে। কিন্তু মিকা খুব দুঃখ পেয়েছেন। এই ম্যানেজার নাকি প্রায় ১০ বছর ধরে কাজ করছিল তাঁর সঙ্গে…

Mika Singh

সোমলতার প্রথম হিন্দি গান…

music-30.7.2018 পুরনো হিট গানের ‘কভার’ নতুন করে রিক্রিয়েট করা এখন বেশ চালু একটি ট্রেন্ড। বলিউডে ‘সনম’ ব্যান্ড বা তারও আগে ‘বম্বে ভাইকিংস’ এই কাজ করে বেশ জনপ্রিয় হয়েছিল। শুধু এতদিন এই ট্রেন্ডের জোয়ার এই বাংলা খুব একটা পায়নি। যদি কিছু গানের অনুষ্ঠান বা রিয়েলিটি শোয়ে পুরনো গান গাওয়ার একটা চল ছিল। যাই হোক, এবার এই ধারার সূচনা করলেন সোমলতা আচার্য চৌধুরী, কেরিয়ারে প্রথমবার একটি হিন্দি গানের কভার গেয়ে। বড়ে গুলাম আলি খাঁ-এর ‘ক্যায়া করুঁ সজনী’ দিয়েই এই নতুন ধারা লশুরু করছেন সোমলতা। এই গানটিকে তাঁর ব্যান্ড ‘সোমলতা অ্যান্ড দি এসেস’ শ্রদ্ধার্ঘ্য হিসেবেই দেখছে। অনলাইন রিলিজ় হল এই গানটি। আর সঙ্গে একটি মিউজ়িক ভিডিয়োও…

Somlata | Somlata and the Aces

বিশাল কীর্তি

music-big1গান যদি আশা ভোঁসলে আর সোনু নিগমকে বেঁধে ফেলে এক সূত্রে, তাহলে কেমন হয়? কিংবা এই গানের জন্যই যদি আবার এক হন অভিজিৎ আর অলকা, তা হলে কেমন হয়? শান আর সুরেশ ওয়াদকর একই গান করেন, তা হলেই বা কেমন লাগে? এই অসম্ভবকেই সম্ভব করতে চলেছেন ‘রেস ৩’ আর ‘বীরে দি ওয়েডিং’-এর অন্যতম সুরকার বিশাল মিশ্র। গান নিয়ে তিনি করে ফেললেন দারুণ এক পরীক্ষা। একই গানের ছ’-ছ’টা ভার্শন তৈরি করে সেটা আলাদা-আলাদা ছ’জন… তা-ও খুব বিখ্যাত ছ’জন গায়ককে দিয়ে গাইয়ে ফেললেন তিনি। music-big2 গানের সূত্রেই আশা ভোঁসলে, সোনু নিগম, শান, অলকা ইয়াগনিক, অভিজিৎ, সুরেশ ওয়াদকরের মতো সঙ্গীত ব্যক্তিত্বকে এনে ফেললেন এক ছাতার তলায়, থুড়ি এক গানের তলায়। বলিউডের লিরিসিস্ট জুটি রেশমি বিরাগ একটা গান লিখেছেন, আর সেই গানেই সুর দেওয়া, আর ওই ছ’জন বিখ্যাত গায়ককে দিয়ে গাওয়ানোর দায়িত্বটাই নিয়েছিলেন বিশাল। একই গানের ছ’-ছ’টা আলাদা-আলাদা ভার্শন বলিউডে এর আগে হয়নি। আর মজার ব্যাপার এখানেই, এই ছ’জন গায়ক কিন্তু কেউই একে অন্যের গান শোনেননি। ছ’টা গান যাতে একদম আলাদা হয়, আলাদা স্টাইলে গাওয়া হয়, তার জন্য নাকি বিশাল কাউকে শুনতে দেননি অন্যের গান। তবে এই প্রজেক্ট কোনও ছবির জন্য নয়। ইন্ডিভিজুয়াল একটি প্রজেক্ট। আজব কীর্তি বোধহয় একেই বলে…

Vishal Mishra | Asha Bhosle | Sonu Nigam | Abhijeet | Alka Yagnik | Suresh Wadkar | Shaan | Reshmi Virag

বাংলাদেশে ইমন

Iman-Chakraborty-big জাতীয় পুরস্কারপ্রাপ্ত ইমন চক্রবর্তী এবার পাড়ি জমালেন ওপার বাংলায়। বাংলাদেশের শিল্পী স্বপ্নীল সজীবের সঙ্গে ‘খয়েরি বিকেল’ নামে একটি গান গাইলেন তিনি। সম্প্রতি রোম্যান্টিক এই গানটির মিউজ়িক ভিডিয়ো তৈরি হল। এটিই বাংলাদেশে ইমনের গাওয়া প্রথম আধুনিক গান। এই গানটি তাঁর আর সজীবের বন্ধুত্বের প্রতিচ্ছবি, এমনটাই বলেছেন ইমন। তবে এটি তাঁর আর সজীবের প্রথম গান নয়। এর আগে রবীন্দ্রসঙ্গীত ‘তুমি কোন কাননের ফুল’-এর মিউজ়িক ভিডিয়ো করেন তাঁরা। সেই ভিডিয়োটি এক মিলিয়ন ভিউয়ারশিপ ছোঁয়। আশা করা যায়, ‘খয়েরি বিকেল’-ও তেমনই কিছু করবে।

ধৃতিমান গঙ্গোপাধ্যায়

Iman Chakraborty | Shwapnil Shojib

সঙ্গীত পরিচালক অনীক

aneek_dhar-big নিয়মিত গান গাইতেন তিনি। জিতেছিলেন ‘বিগ বস বাংলা’র প্রথম সিজ়নও। তবে অনীক ধর যে শুধু গান গাওয়ার মধ্যে নিজেকে সীমাবদ্ধ রাখতে চান না, তা জানিয়েছিলেন বহুবার। সেই স্বপ্ন এতদিনে পূরণ হল। কারণ এবার সঙ্গীত পরিচালক হিসেবে আত্মপ্রকাশ করতে চলেছেন অনীক। তবে একটি শর্ট ফিল্মে। কাইনাত অরোরার নতুন শর্ট ফিল্ম দ্য বার্থ ডে গিফট-এর জন্য গান তৈরি করছেন অনীক। এমনিতেই শর্ট ফিল্ম বেশ জনপ্রিয় একটি মাধ্যম। ইদানীংকালে ওয়েব সিরিজ়ের দৌলতে এই মাধ্যম আরও জনপ্রিয় হয়েছে। ফলে অনীক বেশ খুশি। তাঁর মত, এই ছবির তাঁর সঙ্গীত পরিচালক সত্তাকে আরও উন্নত করবে। একটি গানে অনীক আবার অভিনয়ও করেছেন

সিধু-পটা একসঙ্গে?

shidu-pota-big আনন্দলোক-এর হাত ধরেই ‘এক’ হয়ে ছিলেন তাঁরা। সাড়ে ছ’বছর পর একসঙ্গে আনন্দলোক-এর লাইভ প্ল্যাটফর্মে এসে গানে –আড্ডায় মাতিয়ে দিয়েছিলেন প্রায় পঁচাশি হাজার শ্রোতাকে। মানুষের ভালবাসার আবেগে প্লাবিত হয়ে সিধু এবং পটা জানিয়েছিলেন, দু’জনের আলাদা আলাদা ব্যান্ড থাকলেও, সঙ্গীতের স্বার্থে তাঁরা একসঙ্গে কাজ করতে পারেন। কোনও প্রোজেক্ট তাঁদের ভাল লাগলেই হবে। আনন্দলোক সেই আনন্দসফরের সঙ্গী ছিল। সেই লাইভ শেষ হয়ে যাওয়ার পরে আমাদের কাছে বহু অনুরোধ এসেছে। যাতে সিধু-পটা একসঙ্গে কোনও ব্যান্ডে কাজ করেন। কেন তাঁরা এক হচ্ছেন না, এ প্রশ্নও শুনতে হয়েছে বহুবার। তবে এটা মানতেই হবে, আনন্দলোক সেদিন একটা দরজা খুলে দিয়েছিল। গানে গানে বহু দূরত্ব ঘুচেছিল সেদিন। আর তার রেশ ধরে অনেকেই বিশ্বাস করতে শুরু করেছিলেন, অসাধ্যসাধন করা যায় তা হলে। তার পরে সিধু-পটা একসঙ্গে বেশ কিছু কাজ করেছেন। ‘উমা’ ছবিতে তাঁদের গাওয়া ‘এসো বন্ধু’ প্রশংসিত হয়েছে। একসঙ্গে বিভিন্ন চ্যানেলে দেখাও গিয়েছে তাঁদের। সেই ফ্যাক্টরগুলিকেই কি তা হলে অস্বীকার করতে পারলেন না সিধু এবং পটা? কারণ শোনা যাচ্ছে, ‘ক্যাকটাস’ এবং ‘পটা ও মরুদ্যান’ ব্যান্ড দু’টি অক্ষত থাকলেও, সিধু এবং পটা নাকি ঠিক করেছেন, এবার একসঙ্গে ব্যান্ডে কাজ করবেন। হ্যাঁ, সিধু এটা বলেছিলেন বটে যে, তাঁর যে-কোনও প্রোজেক্টের জন্য পটাকে তিনি ডেকে নিতে পারেন। কিন্তু খবর, কোনও প্রোজেক্ট নয়… পুরোদস্তুর ব্যান্ডই নাকি তৈরি করছেন তাঁরা। ‘ক্যাকটাস’, ‘পটা ও মরুদ্যান’-এর কাজ সমানতালে চলতে থাকবে। কিন্তু পাশাপাশি সিধু-পটাও নাকি নিজেদের একটা লাইনআপ তৈরি হবে! এমনটা হলে যে, বাংলার ব্যান্ড সঙ্গীতপ্রেমী মানুষ নতুন অক্সিজেন পাবেন, সে বিষয়ে কোনও সন্দেহ নেই। তবে বিষয়টি পুরোটাই খবর। এই বিষয়ে সিধু বা পটা অফিশিয়ালি কিছুই জানাননি। দেখা যাক… যা-ই হোক, সর্বপ্রথম জানতে পারবেন আনন্দলোক-এই।

মিউজ়িক্যালি লার্জ!

Sourendra-Souymojit ব্রডওয়ে কী— সঙ্গীত, নাটক, মঞ্চসজ্জা, আলো… সবকিছুর সংমিশ্রনে একটা বিরাট বড় কিছু? অথবা এসব নয়, এগুলির চেয়ে আলাদা, একেবারেই একটা অন্য মঞ্চ-শিল্পমাধ্যম… ব্রডওয়ে নিয়ে নানা মুনির নানা মত। কিন্তু এটুকু ঠিক যে হিউ জ্যাকম্যান থেকে টম হিডলস্টন… ব্রডওয়েতে অভিনয়ের সুযোগ পেলে বর্তে যান তাঁরা। মঞ্চে সিনেমা। না, ভুল… সিনেমার চেয়ে ও বড়। অত ঘাঁটার দরকার নেই। মোট কথা, সেই ব্রডওয়ে মিউজ়িক্যাল ধারণাকে এবার বাংলার মঞ্চে নিয়ে আসছেন কম্পোজ়ার-মিউজ়িশিয়ান জুটি সৌরেন্দ্র-সৌম্যজিৎ। জনপ্রিয় জুটি প্রতিবারই বিশ্ব সঙ্গীত দিবসে নতুন কিছু করার চেষ্টা করে থাকেন। Sourendra-Souymojit2 গতবছর যুগলে ‘ফ্যান্টম অফ দ্য অপেরা’ দেখে আসেন লন্ডনে। তখন থেকেই মাথায় ঘুরছিল, এটা কলকাতায় করা যেতে পারে। আন্তর্জাতিক একটা ছোঁয়া দেওয়া যেতে পারে কলকাতার সঙ্গীত-আকাশে। সেসময়ে উইলিয়াম ড্যালরিম্পলের ‘কোহ-ই-নুর’ পড়ছিলেন সৌম্যজিৎ। এই কাহিনিটিই মিউজ়িক্যালে আনার পরিকল্পনা করেন তাঁরা। অবশেষে পরিকল্পনা সফল, এবার বিশ্ব সঙ্গীত দিবস উপলক্ষে ‘কোহিনুর’ মিউজ়িক্যালটি মঞ্চস্থ হবে। এ নিয়ে কথা বলতে গিয়ে সৌম্যজিৎ বলছিলেন, ‘‘স্কেলটা আমরা বড়ই রাখতে চাইছিলাম। আর তাই, বেশ গভীরে গিয়ে রিসার্চ করেছি আমরা। আলাউদ্দিন খিলজির পাগড়ি কেমন, সেটা রিসার্চ করতেই সময় লেগেছে এক মাস। ময়ূর সিংহাসন তৈরি করা হচ্ছে বহু পরিশ্রম করে। সেই শাহজাহান করেছিলেন, তারপর বোধহয় আমরাই…’’ মিউজ়িক্যালটিতে হিরে হিসেবে নয়, এক নারী হিসেবে দেখানো হবে কোহিনুরকে। একজন এরিয়াল ডান্সার ওই ভূমিকায় থাকছেন। Sourendra-Souymojit3 শুধু শাহজাহান বা ব্রিটিশ কাল নয়, লোভ-লালসা-ক্ষমতার এক লম্বা ইতিহাস সঙ্গীত ও নাটকের মাধ্যমে দেখাবে এই পারফরম্যান্স। কোরিয়োগ্রাফির মূল দায়িত্বে থাকছেন সুদর্শন চক্রবর্তী, সঙ্গীত করেছেন সৌরেন্দ্র-সৌম্যজিৎ। ভারতীয় যন্ত্রের সঙ্গেও ‘কলকাতা সিম্ফনি অর্কেস্ট্রা’ পরিবেশন করছে সঙ্গীত। আছেন থিয়েটারের বহু শিল্পীও। সিনেমার জগতে সদ্য পা রাখা ঋষভ বসু অভিনয় করছেন শাহজাহানের ভূমিকায়। ব্রিটিশ কাউন্সিলের সৌজন্যে, কাজ করছেন ব্রিটিশ অভিনেতারাও। কথকের ভূমিকায় গলা দেবেন হর্ষ নেওটিয়া এবং কোহিনুরের ভয়েসওভার দেবেন স্বয়ং শর্মিলা ঠাকুর! কলকাতায় সফল হলে কোহিনুরকে ভারতের অন্যত্র এবং বিদেশেও নিয়ে যেতে চান সৌরেন্দ্র-সৌম্যজিৎ। বিশেষত লন্ডনে… প্রসঙ্গত, সম্প্রতি মুম্বইয়ে ‘মুঘল-এ-আজ়ম’ মিউজ়িক্যাল করা হয়েছে। তা নিয়েও কথা বলছিলেন সৌম্যজিৎ, ‘‘অত টাকা তো আমাদের নেই। ফলে অত বড় করাটা আমাদের পক্ষে মুশকিল। মঞ্চও তেমন নয় যে সব মিউজ়িশিয়ানদে জায়গা দিতে পারব। আন্তরিকতা এবং রিসার্চের মাধ্যমে আমরা সেই অভাব পূরণ করে দিচ্ছি। দেখবেন, ছোট কিছু হবে না!’’

ধৃতিমান গঙ্গোপাধ্যায়

Kohinoor the Musical | Sourendra-Souymojit | World Music Day