Category Archives: music news

রবীন্দ্রসংগীতে অনুপমের মা

Dhaka-Anupam-Roy-গু ছোটবেলায় মায়ের কাছেই গান শিখেছিলেন অনুপম রায়। আনন্দলোকের সাক্ষাৎকারেই বলেছিলেন, তাঁর সাংগীতিক জীবনে মায়ের অবদানের কথা। সম্প্রতি তাঁর মা মধুঋতাকে দিয়ে তিনি রেকর্ড করালেন রবীন্দ্রসংগীত ‘ঘরেতে ভ্রমর এলো গুনগুনিয়ে’। এমনিতে নিজে গান শিখতেন অনুপমের মা মধুঋতা রায়। ‘রবিতীর্থ’র ছাত্রীও ছিলেন তিনি। তারপর নানা ব্যস্ততায় গানকে আর কেরিয়ার বানানো হয়নি মধুঋতার। নিজে গান ও বিভিন্ন প্রজেক্ট নিয়ে প্রচণ্ড ব্যস্ত। তবে অনুপম বর্তমানে নতুন প্রতিভাদের খুঁজে বের করার কাজ করছেন। সেখানে নিজের স্ত্রী পিয়াকে দিয়েও গাইয়েছেন গান। সেখানে মাকে দিয়ে গানের রেকর্ড, অননুপমের অন্বেষণের মুকুটে অভিনব পালকই বলা চলে। এই গান রেকর্ড করে অনুপম জানিয়েছেন, মাদার্স ডে উপলক্ষ্যে মায়ের গান রেকর্ড করে মাকেই ট্রিবিউট দিলেন তিনি।

Anupam Roy | Aadhurita Roy

হৃদরোগে আক্রান্ত প্রতুল মুখোপাধ্যায়

Musician_Pratul-Mukhopadhay-big ‘আমি বাংলায় গান গাই’, আজীবন বাংলাকে ভালবেসে যাওযা প্রখ্যাত গায়ক ও গীতিকার প্রতুল মুখোপাধ্যায় গুরুতর অসুস্থ হয়ে পড়েছেন। তিনি হৃদরোগে আক্রান্ত হয়ে ভরতি রয়েছেন হাসপাতালে। আজ সকালে হার্ট অ্যাটাকের পর তাঁকে সল্টলেকের একটি বেসরকারি হাসপাতালে তাঁকে ভরতি করা হয়। সেখান থেকে মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের নির্দেশে তাঁকে এস এস কে এমে সরিয়ে নিয়ে যাওয়া বলে শেষ খবর পাওয়া গিয়েছে।

জরুরি চিকিৎসার পর ডাক্তাররা জানিয়েছেন, তাঁর অবস্থা এখন স্থিতিশীল। তবে বিপদ এখনও কাটেনি। মূলত বার্ধক্যজনিত সমস্যাতেই ভুগছিলেন ৭৭ বছরের এই শিল্পী। আজ আবার এই বিপত্তি। এখন তাঁর দ্রুত আরোগ্যের কামনায় আপামর বাঙালি।

Pratul Mukhopadhyay | Heart attack | sskm | Singer | Song writer

তিনের জন্য এক!

Amaan-Ali-Khan-big উস্তাদ আমজাদ আলি খানের সুপুত্র আমান আলি খান নিঃসন্দেহে মার্গসঙ্গীতে এপ্রজন্মের অন্যতম সেরা শিল্পী। এছাড়াও সমাজসেবামূলক কাজেও তিনি পিছিয়ে থাকেন না। ‘মৃণালিনী ক্যানসার রিসার্চ সেন্টার’, ‘মালবিকা থ্যালাসেমিয়া ইউনিট’ এবং ‘নিবেদিতা স্কুল ফর স্পেশ্যাল চিলড্রেন’ নামের তিনটি জনকল্যাণমূলক সংস্থার জন্য অনুদান সংগ্রহের উদ্দেশে এগিয়ে এসেছেন তিনি। একক সরোদবাদন অনুষ্ঠানের মাধ্যমে যা অর্থ সংগৃহীত হবে, সব যাবে এই তিন সংস্থার তহবিলে। আমানের এই প্রচেষ্টা সত্যিই সাধুবাদের দাবিদার। ২১ এপ্রিল কলকাতার জি ডি বিড়লা সভাঘরে আয়োজিত এই অনুষ্ঠানে, আমানের সঙ্গে তবলায় সঙ্গত করবেন শুভঙ্কর বন্দ্যোপাধ্যায়।

‘মার্ভেল’-এর ‘অ্যাভেঞ্জার্স’-এ সুর দিচ্ছেন রহমান

ar-reheman-music মার্ভেলের নতুন সিনেমা ‘অ্যাভেঞ্জার্স: এন্ডগেম’-এর জন্য এবার নতুন অ্যান্থেম তৈরি করছেন এ আর রহমান। গত বছর ‘অ্যাভেঞ্জার্স: ইনফিনিটি ওয়ার’ বেশ উন্মাদনার সৃষ্টি করেছিল ফ্যানেদের মধ্যে। শুরু হয়েছিল পরবর্তী সিনেমা ‘এন্ডগেম’-এর জন্য অপেক্ষা। ভারতে ‘মার্ভেল’ ফ্যানেদের সংখ্যা কম নয়। আর সেই ভারতীয় ফ্যানেদের কথা মাথায় রেখেই ‘মার্ভেল ইন্ডিয়া’ রহমানের সঙ্গে গাঁটছড়া বেঁধেছিল। রহমানের কম্পোজ় করা সেই ‘মার্ভেল অ্যান্থেম’ হিন্দি ছাড়াও তামিল ও তেলুগু ভাষায় বেরবে। ১ এপ্রিলই তা শুনতে পারবেন ফ্যানেরা। ‘অ্যাভেঞ্জার্স’-এর মতো জনপ্রিয় সিনেমার সঙ্গে যুক্ত হতে পেরে রহমান বেশ খুশি। ‘ভাল’ কিছু করার চাপ থাকলেও তাঁর বক্তব্য, গানটি সকলেরই বেশ ভাল লাগবে।

Avengers: Endgame | A.R. Rahman | Marvel India

‘হবুচন্দ্র রাজা গবুচন্দ্র মন্ত্রী’র কাজ ছাড়লেন অপমানিত কবীর সুমন!

music-26.3.2019-big সব ঠিকঠাক চলছিল। দেবের প্রযোজনা এবং অনিকেত চট্টোপাধ্যায়ের পরিচালনায় হবুচন্দ্র রাজা গবুচন্দ্র মন্ত্রীর সঙ্গীত পরিচালনার কাজ বেশ খুশিমনেই শুরু করেছিলেন কবীর সুমন। প্রতীক চৌধুরী, রাঘব চট্টোপাধ্যায়, অনিন্দ্য চট্টোপাধ্যায় তো বটেই, এক ঝাঁক খুদে শিল্পীকে দিয়ে করিয়েছেন গানের রেকর্ডিংও। কিন্তু হঠাৎই ঘটনাটা ঘটল বিনা মেঘে বজ্রপাতের মতো। কবীর সুমন মাঝপথেই কাজ ছেড়ে দিলেন ‘হবুচন্দ্র রাজা…’র! অভিযোগ আনলেন প্রযোজক এবং পরিচালকের বিরুদ্ধে এবং স্পষ্টভাবে বললেন, তাঁকে অপমান করেছেন দেব এবং অনিকেত! এবং এটা সহ্য করতে পারেননি বলেই ছবিটির কাজ ছেড়েছেন তিনি! কিন্তু কেন অপমানিত বোধ করলেন সুমন? আনন্দলোক-কে দেওয়া একটি এক্সক্লুসিভ সাক্ষাৎকারে সমস্ত ঘটনা পুঙ্খানুপুঙ্খভাবে জানিয়েছেন কবীর সুমন। প্রযোজক-পরিচালকের বিরুদ্ধে উগড়ে দিয়েছেন ক্ষোভ! সেই এক্সক্লুসিভ ইন্টারভিউ পড়তে হলে সংগ্রহ করুন ২৭ মার্চ সংখ্যার আনন্দলোক! আগামীকাল প্রকাশিত হচ্ছে…

Kabir Suman | Dev | Aniket Chatterjee | Hobuchondo Raja Gobuchondro Mantri

আর কতদিন…

emon-somlata-big কৃষ্ণনগরে ইমন চক্রবর্তীর হেনস্থার ঘটনাটা ফের একটা প্রশ্নের মুখোমুখি দাঁড় করিয়ে দিল। গান করেন বলে কি ন্যূনতম সম্মানও আশা করতে পারবেন না এই বঙ্গের শিল্পীরা? পারিশ্রমিক দেওয়া হচ্ছে বলে শিল্পীদের সঙ্গে যেমন খুশি ব্যবহার করা যাবে, হেনস্থা করাও যেতে পারে… এমন ভাবনাচিন্তা কি মধ্যযুগে ফিরে যাওয়ার পরিচায়ক নয়? মাসখানেক আগে মেখলা দাশগুপ্ত, কিছুদিন আগে সোমলতা আচার্য চৌধুরী এবং গতকাল ইমন চক্রবর্তী… প্রত্যেকেই কলকাতার বাইরে গান গাইতে গিয়ে চরম হেনস্থার মুখে পড়েছেন। উত্তরবঙ্গ থেকে সোমলতার এবং কৃষ্ণনগর থেকে ইমনের ফেসবুক লাইভ ভিডিয়োটি এখন সকলেই দেখে ফেলেছেন… প্রত্যেকবারই হুমকি, ‘‘এখান থেকে (অনুষ্ঠান চত্বর) কী করে বেরোতে পারে দেখব!’’ অপরাধ কী? না, টাকাপয়সা নিয়ে ‘নির্দিষ্ট’ সময় পর্যন্ত গান করেননি শিল্পীরা! যদিও এই নির্দিষ্ট সময়টা আয়োজকদেরই ঠিক করে নেওয়া, কিন্তু তা-ও বলতে হয়, ঠিক কোন রুচি এবং শিক্ষা থেকে এই ধরনের মন্তব্য করা যায়? একজন মহিলা শিল্পীর গাড়ি আটকে রেখে, তাঁকে জল এবং খাবার না দিয়ে, তারপরও এই ধরনের মন্তব্য ঠিক কীসের আস্ফালন? একজন শিল্পীকে টাকা দিয়েছি মানেই তাঁকে যা খুশি বলা যায়, ভদ্রতার খাতিরে তিনি হাত বা মুখ চালাতে পারবেন না বলে গা়ড়ি আটকে হুমকি দেওয়া যায়, তাঁকে নিরাপত্তাহীনতার চরম সীমায় নিয়ে যাওয়া যায়… এই চিন্তাভাবনা তো খুব উচ্চ মানসিকতা থেকে আসে বলে মনে হয় না। অথচ দুর্ভাগ্যজনক হল, প্রতিবারই এই দোষে দুষ্ট বলে যাঁদের কাঠগড়ায় তোলা হচ্ছে, তাঁরা হয় রাজনৈতিকভাবে নয়তো সামাজিকভাবে বেশ ‘উচ্চ’ পদে আসীন! ফলে ভয়টা আরও সেখানেই। যাঁদের নিরাপত্তা দেওয়ার কথা, তাঁরাই যদি নিরপত্তাহীন করে দেন, তা হলে ভয় তো হবেই। কিন্তু এই ‘আয়োজক’রা বোধ হয় বুঝতে পারছেন না পরপর একইরকমের ঘটনা ঘটতে থাকলে একদিন না একদিন প্রতিরোধ হবেই। সোমলতা, ইমনরা নিজেদের মতো করে প্রতিবাদ করেছেন এবং তার আঁচ বাকি শিল্পীদের উপর গিয়েও পড়েছে। এখনও যদি পরিস্থিতি না শোধরায়, তা হলে ক্ষোভ পুঞ্জীভূত হতে বেশি সময় লাগবে না। আর শিল্পীদের পূঞ্জীভূত ক্ষোভ যে কী সাংঘাতিক জিনিস, তার সাক্ষী তো ইতিহাসই…

প্রয়াণ!


চলে গেলেন গায়ক দ্বিজেন মুখোপাধ্যায়! মৃত্যুকালে বয়স হয়েছিল ৯১ বছর। বাংলা সঙ্গীত জগতের এক নক্ষত্রসম ব্যক্তিত্ব ছিলেন দ্বিজেন। মূলত রবীন্দ্রসঙ্গীত শিল্পী হিসেবে খ্যাতি পেলেও নানা ধরনের গান গেয়েছিলেন তিনি। করেছেন হিন্দি ছবির প্লে-ব্যাকও। তাঁর মৃত্যু বাংলা সঙ্গীত জগতের পক্ষে এক অপূরণীয় ক্ষতি বটে।

#dwijen Mukherjee, #death, #91 years, #Rabindrasangeet

বিরক্ত ইমন!

imon-music-bigতাঁর গানের অনুষ্ঠান থাকে বছরজুড়েই। কখনও মূল শহরে, আবার কখনও শহর ছেড়ে কিছুটা দূরে। তাতে তো একজন শিল্পীর আনন্দই হওয়ার কথা! কিন্তু এখন নাকি অনুষ্ঠানই হয়ে উঠছে ইমন চক্রবর্তীর বিরক্তির কেন্দ্র! উহুঁ, গান এবং এই ব্যস্ততা—দুটোই তিনি খুবই উপভোগ করছেন। কিন্তু তাঁর বিরক্তির কারণ অনুষ্ঠানে উপস্থিত এক শ্রেণির শ্রোতা। এইসব শ্রোতাদের উদ্দেশে ইমন তাঁর সোশ্যাল মিডিয়ার একটি পোস্টে লিখেছেন— “দু’ একটা গানের পরেই কিছু সংখ্যক মানুষ নাচের গান শুনতে চাইছেন। নাচের গানটা ঠিক কি বলুন তো? অনুষ্ঠান দেখতে যাঁরা আসছেন তাঁরা Entertainment চান, মানছি । আমরাও আপনাদের আনন্দ দেওয়ার আপ্রাণ চেষ্টা করি। নিজেরাও আনন্দ পাই। কিন্তু বার-বার নাচের গান, নাচের গান শুনে আদপেই গান গাওয়ার ইচ্ছে চলে যাচ্ছে। মনে হচ্ছে কতক্ষণে নেমে পালাব। এমনটা ভাল লাগছে না।” এই সংকট থেকে কি বের হতে পারবে বাংলা গানের স্টেজ পারফরমেন্স? সেটার উত্তর লুকিয়ে রয়েছে আগামীদিনের বাংলা গানের মধ্যেই!

তিতাস চট্টোপাধ্যায়

Iman chakraborty | music

কুমার শানুর নামে চক্রান্ত?

kumar-sanu-big0

এর আগেও তাঁর নামে মিথ্যে গুজব রটানো হয়েছে। আরও একবার তার পুনরাবৃত্তি হল। প্রায়ই শোনা যায় যে কুমার শানু নাকি বিজেপি-তে যোগ দিয়েছেন। যদিও এই ঘটনার কোনও সত্যতা নেই। বহুবছর আগে বিজেপি-তে যোগ দিয়েছিলেন শানু। তবে তার পিছনে একটাই কারণ ছিল। নিজের এনজিও-র জন্য যদি কিছু সুবিধে পাওয়া যায়। সেই সম্ভবনা যখন ক্ষীণ হয়ে যায়, তখন শানু বিজেপি থেকে বেরিয়ে আসেন। আনন্দলোক-এর ফেসবুক লাইভে এরকমই জানিয়েছিলেন বলিউডের এই মেলোডি কিং। তবে শানুকে নিয়ে এই চক্রান্ত চলতেই থাকে। বর্তমান এক বাংলা খবরের চ্যানেলে একটি খবর দেখে চমকে যান কুমার শানু। সেখানে এক্সক্লুসিভ খবর দেখানো হয় যে আগামী ১৬ ডিসেম্বর, শিলিগুড়িতে বিজেপি-র জনসভা ও রথযাত্রা মিছিলে নাকি কুমার শানু উপস্থিত থাকবেন। খবরটি দেখেই আনন্দলোক প্রতিনিধিকে ফোন করেন শানু। ক্ষুব্ধ গলায় জানান, ‘‘আনন্দলোক-এর মাধ্যমে আমার সকল শুভাকাঙ্খী, শুভানুধ্যায়ী শ্রোতাদের জানাচ্ছি, বর্তমানে একটি টিভি চ্যানেলে আমার সম্বন্ধে ভুল প্রচার করা হচ্ছে। বলা হচ্ছে, আমি নাকি শিলিগুড়িতে বিজেপি-র জনসভা ও রথযাত্রা মিছিলে উপস্থিত থাকব। খবরটি সম্পূর্ণ মিথ্যে। কোনও এক সময় আমি বিজেপি-তে যোগদান করেছিলাম, কিন্তু বর্তমানে আমি কোনও রাজনৈতিক দলের সঙ্গে যুক্ত নই। সকল রাজনৈতিক নেতা ও কর্মীদের আমি সম্মান করি। দয়া করে আপনারা আমার মুখ থেকে কোনও কথা না শোনা অবধি কোনও গুজবে কান দেবেন না।’’

আসিফ সালাম

Kumar sanu | conspiracy against Bollywood singer kumar sanu

মোবাইল নিয়ে বিড়ম্বনা রূপমের!

rupam-islam-big এক অদ্ভুত বিড়ম্বনায় পড়েছেন রূপম ইসলাম। rupam-islam-big1 তিনি সস্ত্রীক আগরতলায় গিয়েছেন। এবং ২২ ঘণ্টায় নাকি তাঁর ও তাঁর স্ত্রী রূপসার টেলিফোন বিল হয়েছে ১৬,০০০টাকারও বেশি! কারণ হিসেবে ফোনের সার্ভিস প্রোভাইডার দেখিয়েছে আন্তর্জাতিক রোমিংয়ের অজুহাত। rupam-islam-big2 গোটা ঘটনাটি টুইট করে জানিয়েছেন গায়ক স্বয়ং। তিনি নেটওয়র্ক সংস্থাকে ফোন করলে তারা সটান জানায়, টাকা ফেরত দেওয়া বা অ্যাডজাস্ট করা যাবে না। এতেই বেজায় বিব্রত রূপম। সার্ভিস প্রোভাইডারের টুইটার হ্যান্ডলে গিয়ে অভিযোগ জানিয়েছেন তিনি। বলে দিয়েছেন, একটা হেস্তনেস্ত করে ছাড়বেন তিনি। ছাড়বেন না সহজে!