magazine_cover_12_decemberr_18.jpg

Tolly News

নতুন বিষয়, দর্শক তৈরি তো?

Purba-Pashchim-big তারাপীঠ, কালী এবং সেই সঙ্গে তন্ত্রসাধনা— বাঙালি সংস্কৃতির সঙ্গে ওতোপ্রতোভাবে জড়িয়ে রয়েছে এগুলি। প্রাচীনযুগে বাংলাকে তন্ত্রসাধনার কেন্দ্র হিসেবে মনে করতেন অনেকেই। সাধারণ মানুষের কাছে তন্ত্রসাধনার দিকগুলি কিন্তু এখনও অন্ধকারেই থেকে গিয়েছে। এবার সেই বিষয়টাকেই যুক্তিগ্রাহ্য করে পরদায় তুলে ধরবেন পরিচালক রাজর্ষি দে। তাঁর ছবির নাম ‘পূর্ব পশ্চিম দক্ষিণ (উত্তর আসবেই)’। লেখক অভীক সরকারের বেস্ট-সেলিং বই ‘এবং ইনকুইজ়িশন’-এর তিনটি গল্প অবলম্বনে তৈরি এই ছবিতে দেখানো হবে প্যারানর্মাল, আধিদৈবিক ও আধিভৌতিক হরেকরকমের জিনিস। মানুষের নানা অন্ধ বিশ্বাস, কালো জাদু, এমনকি পুনর্জন্মের বিষগুলোও রয়েছে রাজর্ষির এই ছবিতে। চৈতন্যদেবের সমসাময়িক কৃষ্ণানন্দ আগমবাগীশের মতো ঐতিহাসিক চরিত্রকে নিয়ে সিনেমাও নাকি বাংলাতে এই প্রথম হচ্ছে। ছবির শুটিং শুরু হবে কয়েকদিনের মধ্যেই। তবে তার আগে হয়ে গেল এই ছবির মহরত অনুষ্ঠান। এতদিন অবধি এই জাতীয় অনুষ্ঠান শপিং মল কিংবা পাঁচতারা হোটেলেই হতে দেখে এসেছে সকলে। তবে ‘পূর্ব পশ্চিম দক্ষিণ (উত্তর আসবেই)’ ছবিটির মহরত অনুষ্ঠান হল ডাকাত কালী বাড়িতে, মন্দিরের ভিতরে! ছবির গল্পের বিষয়বস্তুর সঙ্গে তাল মিলিয়েই যে এমন ভাবনার অবতারণা, তা জানালেন স্বয়ং এই ছবির অন্যতম প্রধান অভিনেতা ও প্রযোজক সুচন্দ্রা ভানিয়া। পরিচালক রাজর্ষির বক্তব্য, বাংলায় এরকম কাজ এই প্রথম। ভারতবর্ষের সেরা প্রযুক্তির টিম কাজ করছে তাঁর এই ছবির জন্য, ফলে ছবির সাফল্য নিয়ে যথেষ্ট আশাবাদী তিনি। ছবিতে মুখ্য ভূমিকায় অভিনয় করছেন পরান বন্দ্যোপাধ্যায়, কমলেশ্বর মুখোপাধ্যায়, অর্পিতা চট্টোপাধ্যায়, রাজেশ শর্মা, গৌরব চক্রবর্তী, আরিয়ান ভৌমিক, সুচন্দ্রা ভানিয়া, বিদিপ্তা চক্রবর্তী, পদ্মনাভ দাশগুপ্ত, সত্রাজিৎ সরকার, কৌশিক কর, মালবিকা সেন, প্রমুখ। দীর্ঘদিন পরে বড়পরদায় ফিরতে চলেছেন নাট্যাভিনেতা রুদ্রপ্রসাদ সেনগুপ্ত। মানবী বন্দ্যোপাধ্যায়ও অভিনয় করছেন একটি চরিত্রে। পুরুলিয়ার রঘুনাথপুরের নীলডি পাহাড় ছাড়াও কলকাতার কিছু-কিছু জায়গায় এই ছবির শুটিং হবে।

ইন্দ্রাণী ঘোষ

Purbo Paschim Dakkhin (Uttor Ashbei) | Rajarshi De | Paran Bandyopadhyay | Rudraprasad sengupta | Rajesh Sharma | bengali movie