Author Archives: admin

srijit-Aniket-Chatterjee-home

srijit mukherjee-aniket chatterjee-gumnami

‘গুমনামী’র বিরুদ্ধে বিস্ফোরক অনিকেত! জড়ালেন সৃজিতও…

জিত মুখোপাধ্যায়ের নতুন ছবি ‘গুমনামী’ নিয়ে যে নেতাজি সুভাষচন্দ্র বসুর পরিবার আপত্তি জানিয়েছিল..

srijit-Aniket-Chatterjee-small

‘গুমনামী’র বিরুদ্ধে বিস্ফোরক অনিকেত! জড়ালেন সৃজিতও…

সৃজিত মুখোপাধ্যায়ের নতুন ছবি ‘গুমনামী’ নিয়ে যে নেতাজি সুভাষচন্দ্র বসুর পরিবার আপত্তি জানিয়েছিল, সেটা তো আপনারা আনন্দলোক-এর সূত্রে আগেই জেনে গিয়েছিলেন। নেতাজির পরিবারের সদস্য চন্দ্র কুমার বসু বলেছিলেন, ‘‘গুমনামীবাবা যে নেতাজি ছিলেন না, তা তো প্রমাণিতই।

‘গুমনামী’র বিরুদ্ধে বিস্ফোরক অনিকেত! জড়ালেন সৃজিতও…

srijit-Aniket-Chatterjee-big

সৃজিত মুখোপাধ্যায়ের নতুন ছবি ‘গুমনামী’ নিয়ে যে নেতাজি সুভাষচন্দ্র বসুর পরিবার আপত্তি জানিয়েছিল, সেটা তো আপনারা আনন্দলোক-এর সূত্রে আগেই জেনে গিয়েছিলেন। নেতাজির পরিবারের সদস্য চন্দ্র কুমার বসু বলেছিলেন, ‘‘গুমনামীবাবা যে নেতাজি ছিলেন না, তা তো প্রমাণিতই। এবার সৃজিত যদি কোনওভাবে ছবিতে দেখাতে চেষ্টা করেন এই দুই ব্যক্তি একই মানুষ, তা হলে অপরাধ হবে।’’ এর জন্য সৃজিতকে দেশবাসীর কাছে জবাবদিহি করতে হবে বলেও হুঁশিয়ারী দিয়েছিলেন তিনি। যাই হোক, তখন সৃজিত বলেছিলেন, তিনি রিসার্চ করে যা প্রমাণ পেয়েছেন, তার উপর ভিত্তি করেই ছবিটি করবেন। এবং এই ছবির জন্য তাঁর অন্যতম বড় রেফারেন্স পয়েন্ট চন্দ্রচূড় ঘোষ এবং অনুজ ধরের লেখা নতুন বই ‘কোনানড্রম’! যাই হোক, তারপর সৃজিত প্রসেনজিৎ চট্টোপাধ্যায়কে নিয়ে ছবির শুটিংও শুরু করে দিয়েছিলেন। এতদিন তেমন ঝামেলা হয়নি। কিন্তু এবার হঠাৎ করে রণক্ষেত্রে নামলেন পরিচালক অনিকেত চট্টোপাধ্যায়। ফেসবুকে গুমনামীবাবার বিরুদ্ধে একটি লেখা পোস্ট করেছেন তিনি। হঠাৎ এই বিষয়টি নিয়ে কেন তিনি মুখ খুললেন, জানা না গেলেও সেই লেখা আমরা পাঠকের সামনে তুলে ধরলাম। যদিও তিনি বইটির বিরুদ্ধে গিয়েই বিষোদ্গার করেছেন, কিন্তু ছবি করার দরুণ সৃজিতও যে তার মধ্যে জড়িয়ে গিয়েছেন সন্দেহ নেই। কারণ অনিকেতের বিরুদ্ধাচারণ করে বইটির লেখক চন্দ্রচূড় ঘোষও একটি লেখা পোস্ট করেছেন। সেটি সৃজিতও পোস্ট করেছেন। আমরা সেটাও তুলে ধরলাম। আপনারা বিচার করুন…

অনিকেত চট্টোপাধ্যায়ের ফেসবুক পোস্ট

#গুমনামিজোচ্চরফেরেব্বাজ ১

রবীন্দ্রনাথ এবং তাঁর বউদির সঙ্গে প্রেম আর নেতাজী ফিরে আসবেন, বেঁচে আছেন, বিয়ে করেছেন কিনা, এই দুটো বিষয় নিয়ে যত অখাদ্য বই লেখা হোক না কেন, পাবলিশার তো জুটে যাবেই, বিক্রি বাট্টাও কম হয় না। সেটা অনেকে বুঝেছেন, বুঝেছেন অনুজ ধরও। কাজেই নেতাজী নিয়ে প্রায় একই গাল গল্প ছাপিয়েই যাচ্ছেন। একবার বাংলা তে, একটু পালটে নিয়ে সেটাই আবার ইংরিজি তে। তো ওনার ‘নেতাজী ফিরেছিলেন’ আর CONUNDRUM বই দুটো পড়ে এই লেখা। একটা পুরো দস্তুর জোচ্চর হামবাগ নিম্ন স্তরের ফেরেব্বাজ কে নেতাজী বলে প্রমাণ করার চেষ্টা। প্রমাণ কোথায়? ইনি বলেছেন, উনি বলেছেন, তিনি বলেছেন। মানে কিছু লোকজন কী বলেছেন তার ওপর ভিত্তি করে ইতিহাস লেখা। Gumnami-poster-1 ডিএনএ টেস্ট হয়েছে? হ্যাঁ। ফল কী? দু জায়গাতেই নেগেটিভ। হ্যান্ড রাইটিং এক্সপার্ট রা কী বলেছেন? সরকারি দপ্তর (আদালতে গেলে যাঁদের ভাষ্য মানা হবে), তাঁরা বলেছেন মিলছে না। এমন একটা material proof নেই যা প্রমাণ করে যে এই দুটো মানুষ এক। এবং এই জোচ্চরটি নিজে যা বলেছেন সেগুলো সামনে রাখলে বুঝতে অসুবিধে হয়না যে অত্যন্ত নিম্ন স্তরের ফেরেব্বাজ ছিলেন এই লোকটি। আজ থেকে ধারাবাহিকভাবে লিখবো এই গুমনামি জোচ্চরটি কী কী দাবী করেছিলেন। একটু ছুঁইয়ে রাখা যাক, যাতে আগামী কদিন এই গুলবাজটির কথা পড়তে পড়তে হাসতে হাসতে আপনাদের দিন কাটবে। গুমনামি জোচ্চর (নিজেকে যিনি নেতাজী বলেন) ভারতে এসেছিলেন নেপাল বর্ডার দিয়ে সঙ্গে ছিল হিটলার আর হিমলার!! গুমনামি জোচ্চর (নিজেকে যিনি নেতাজী বলেন) মাও সে তুং কে অ্যালোপাথি খাবার পরামর্শ দিয়েছিলেন, ওনার দরখাস্ত লিখে দেবার পর চীন ইউ এন সিকিউরিটি কাউন্সিলের সদস্যপদ পায়, উনি হো চি মিন কে ভিয়েতনাম যুদ্ধে জিততে হলে কী করতে হবে সেটা বলে দেন, উনিই জেনারেল মানেক শ কে কিভাবে বাংলাদেশ এর যুদ্ধে জিততে হবে সেটা বলে দিয়েছিলেন ইত্যাদি ইত্যাদি। এরকম প্রচুর কথা যা ঐ গুমনামি জোচ্চর বলেছিলেন সেটা লিখব। পড়বেন, মতামত দেবেন… একটা নিম্ন স্তরের জোচ্চর কে আর যাই হোক দেশের এক অবিসংবাদী নেতাকে নেতাজী বলে চালানোর প্রতিবাদ করুন।

‘কোনানড্রম’ এর লেখক চন্দ্রচূড় ঘোষের পোস্ট…

Gumnami-poster-2শ্রী অনিকেতকে আমি চিনি না, কয়েকদিন আগে পর্যন্ত ওনার অস্তিত্বও আমার জানা ছিল না। হঠাৎ দেখ্লাম উনি তেড়েফুঁড়ে উঠেছেন গুমনামী বাবাকে নিয়ে। প্রথমে একটু অবাক হলেও পরে খুশিই হলাম এটা দেখে যে নেতাজী-গুমনামী বাবার নাম শুনে যাদের সব কান্ডজ্ঞান, বুদ্ধিশুদ্ধি লোপ পায়, সেই সব লোকজনের গুণমান হয়্ত একটু একটু করে বাড়ছে। এক পদবী ভাঙ্গিয়ে খাওয়া, নেতা হওয়ার স্বপ্ন দেখা, ডুপ্লিকেট নেতাজী থেকে সোজা চলচ্চিত্র নির্দেশক – ব্যাপারটা বেশ মজার বইকি। দেখলাম হইচই-খ্যাত এই নির্দেশক বাবু হইহই করে গুমনামী বাবাকে জোচ্চর-ফেরেববাজ ইত্যাদি আখ্যা দিচ্ছেন। এই ধরনের লোকজনের একটা বৈশিষ্ট্য হচ্ছে যে এনারা শুধু গালাগাল দেবার আনন্দটা পাওয়ার জন্য নিজেদের সাধারণ বোধবুদ্ধি বিসর্জন দিতে বা ডাহা মিথ্যে কথা বলতে কোন সংকোচ হয় না। এনাদের আরও কয়েকটা বৈশিষ্ট্য হল:

1. যখন আমাদের মিশন নেতাজী ডিক্লাসিফিকেশনের জন্য ২০০৬ সাল থেকে আন্দোলন করছিল তখন কিন্তু এনাদের টিকিটিও কোথাও দেখা যায়নি
2. নেতাজীর অন্তর্ধান রহস্য বস্তুটা কি তা নিয়ে এনাদের কোন পরিষ্কার ধারণা নেই। প্রায় সাত দশক ধরে ভারত সরকার কি করেছে, অন্যান্য কে কি করেছেন তা নিয়েও এনারা প্রায় কিছুই জানেন না
3. প্রায় পনেরো বছর ধরে অনুসন্ধান/গবেষণা করে অনুজ ধর ও আমি সাড়ে আটশো পাতার ‘কনানড্রাম’ বলে যে বইটা লিখেছি, সেটা এনারা কেউই পড়েননি, বা অতিকষ্টে কয়েক পাতা পড়ে ফেললেও কিস্যু বোঝেননি। গোটা বিষয়টিতে ইতিহাস ও রাজনীতির যে জটিল খেলা তুলে ধরা হয়েছে, তা বোঝার ক্ষমতা স্পষ্টতই এনাদের নেই।

একইভাবে, যদিও অনিকেতবাবু প্রায় হাফ ছাড়া স্টাইলে ঘোষণা করেছেন যে বইটা উনি পড়েই ফেললেন, ওনার বোকা বোকা লেখাগুলো থেকে পরিষ্কার যে যদি উনি অন্য কাউকে দিয়ে কয়েক পাতা পড়িয়ে নিয়েও থাকেন, একটা কথাও ওনার মাথায় ঢোকেনি (উনি বোধহয় এটাও জানেন না যে অনুজ বাঙালী নয়)। গুমনামী বাবা ঠগ না জোচ্চর সে নিয়ে আমরা অতি বিশদে আলোচনা করেছি। উনি যদি সত্যিই জানতে ইচ্ছুক হন, তবে ‘সোহম’ অধ্যায়টি আরেকবার পড়ে নিন।

তার জন্য অবশ্য সততার একটু প্র্য়োজন হবে, আর গন্ডগোলটা সেখানেই। যা দেখাচ্ছেন চাটুয্যেবাবু তাতে মনে হচ্ছে ওনার গোপন ব্যাথাটা অন্য কোথাও। সে যাই হোক্, আজ নয় তো কাল সেটা বেরিয়ে পড়বেই। আপাতত এটুকু দেখে ভারী মজা লাগছে যে উনি নিজেকে লীলা রায়, পবিত্র মোহন রায়, এবং অনুশীলন সমিতি ও শ্রী সংঘের বিপ্লবিরা যারা সুভাষ বোস ও পরবর্তীকালে গুমনামী বাবার অত্যন্ত ঘনিষ্ট ছিলেন, তাদের থেকেও ওপরে স্থাপন করেছেন।

আজ এটুকুই। এরপর যদি কখনো কোন কিছু লেখেন যাতে অল্প স্বল্প বুদ্ধির ছাপ ভুল করেও চলে আসে, তখন তার উত্তর দেওয়া যাবে। ততদিন কিছু বিশুদ্ধ ভাঁড়ামোর আনন্দ নেওয়া যাক। চালিয়ে যান চাটুয্যেমশাই।

সায়ক বসু

Srijit Mukherjee | Aniket Chatterjee | Conundrum | Gumnami | Netaji Subhash Chandra Bose

Dev-17.6.2019-home

Dev is not interested in Dev

ফোকাস নষ্ট করতে চান না দেব

হিরো থেকে প্রোডিউসার— টলিউডের অন্যতম জনপ্রিয় নায়ক দেবের কেরিয়ার গ্রাফটা ঠিক এমনই..

Dev-17.6.2019-small

ফোকাস নষ্ট করতে চান না দেব

হিরো থেকে প্রোডিউসার— টলিউডের অন্যতম জনপ্রিয় নায়ক দেবের কেরিয়ার গ্রাফটা ঠিক এমনই। অভিনয়ই হোক বা প্রযোজনা, দেব সবেতেই নিজের সেরাটা দেওয়ার চেষ্টা করেন। নতুন-নতুন ধরনের ছবি করার প্রতি তাঁর আগ্রহও রয়েছে।

ফোকাস নষ্ট করতে চান না দেব

Dev-17.6.2019-bigহিরো থেকে প্রোডিউসার— টলিউডের অন্যতম জনপ্রিয় নায়ক দেবের কেরিয়ার গ্রাফটা ঠিক এমনই। অভিনয়ই হোক বা প্রযোজনা, দেব সবেতেই নিজের সেরাটা দেওয়ার চেষ্টা করেন। নতুন-নতুন ধরনের ছবি করার প্রতি তাঁর আগ্রহও রয়েছে। শুধু ওয়েব সিরিজ় প্রযোজনার কথা এখনই ভাবছেন না তিনি। আরও ভাল করে বললে ওয়েব সিরিজ় নিয়ে কাজ করার বিশেষ ইচ্ছে নেই তাঁর। কিন্তু কেন? এখন তো ওয়েব সিরিজ়ের যুগই চলছে, তাহলে? দেবের জবানিতে বলতে গেলে বলতে হয় যে তাঁর প্রোডিউসার হওয়ার পিছনে সবচেয়ে বড় কারণ হল, যে ছবিটা সাহস করে অন্য কেউ করতে চাইবে না, সেটা করা। সময়ের চেয়ে এগিয়ে রয়েছে এমন কনসেপ্টের ছবি নিয়ে কাজ করা বেশি করে। ওয়েব সিরিজ় করলে সিনেমার থেকে ফোকাসটা অন্য দিকে সরে যাবে, একসঙ্গে দুটো প্ল্যাটফর্মে কাজ করতে গিয়ে কোনও কাজই ভাল করে করা হবে না। তাঁর কাছে এটা কম্প্রোমাইজ়! টাকা রোজগারের জন্য এই কম্প্রোমাইজ় তিনি করবেন না, বরং একদিকে ফোকাস ঠিক রেখে ভাল কাজ করার দিকেই তাঁর আগ্রহ বেশি।

Dev | Web series | Producer | dev | Acting | Cinema

sanjay-leela-kamaleshawr-home

sanjay leela brings the life of test tube baby maker

সঞ্জয়লীলা আর কমলেশ্বরের উদ্যোগে সুভাষের জীবনী পরদায়…

ভারতে প্রথম টেস্টটিউব বেবি তৈরি করেন এই বঙ্গের ডাক্তার সুভাষ মুখোপাধ্যায়..

sanjay-leela-kamaleshawr-small

সঞ্জয়লীলা আর কমলেশ্বরের উদ্যোগে সুভাষের জীবনী পরদায়…

ভারতে প্রথম টেস্টটিউব বেবি তৈরি করেন এই বঙ্গের ডাক্তার সুভাষ মুখোপাধ্যায়। না ছিল ফান্ডিং, না পরিস্থিতির সাহায্য। বরং ছিল সবকর্মীদের চক্রান্ত, রাজনৈতিক বাধা। বাঙালি তাঁকে মনেও রাখেনি। তাঁর জীবনী এবার বড় পরদায় ফুটিয়ে তুলতে চলেছেন সঞ্জয়লীলা ভনসালী।

সঞ্জয়লীলা আর কমলেশ্বরের উদ্যোগে সুভাষের জীবনী পরদায়…

sanjay-leela-kamaleshawr-big ভারতে প্রথম টেস্টটিউব বেবি তৈরি করেন এই বঙ্গের ডাক্তার সুভাষ মুখোপাধ্যায়। না ছিল ফান্ডিং, না পরিস্থিতির সাহায্য। বরং ছিল সবকর্মীদের চক্রান্ত, রাজনৈতিক বাধা। বাঙালি তাঁকে মনেও রাখেনি। তাঁর জীবনী এবার বড় পরদায় ফুটিয়ে তুলতে চলেছেন সঞ্জয়লীলা ভনসালী। তাঁর প্রযোজনায় তৈরি হবে সুভাষের জীবনকাহিনি। পরিচালনা করছেন কমলেশ্বর মুখোপাধ্যায়, যিনি নিজেও পেশায় ডাক্তার। নিঃসন্দেহে এ এক অনুপ্রেরণা জোগানোর মতো বিষয় এবং প্রচেষ্টা।

Karan-V-Grover-Dipika-Kakkar-small

ডাক্তার-অভিনেত্রীর প্রেম…

আচ্ছা একজন ডাক্তার আর একজন অভিনেত্রীর মধ্যে যদি প্রেম হয়ে যায় তাহলে কীরকম হবে? ঠিক এই কনসেপ্ট নিয়েই একটি চ্যানেলে শুরু হতে চলেছে ডেলি সোপ ‘কাঁহা হাম কাঁহা তুম’। মুখ্য ভূমিকায় করণ ভি গ্রোভার আর দীপিকা কক্কর।