magazine_cover_12_July_19.jpg

Tolly News

অরিন্দমের উপর নিষেধাজ্ঞা! কী বলছেন অরিন্দম?

arindam-sil-banned-গু আনন্দলোক-এর ২৭ মার্চ সংখ্যার ‘বিপাকে অরিন্দম!’ শীর্ষক প্রতিবেদনে আনন্দলোক-ই প্রথম প্রকাশ্যে এনেছিল অরিন্দম শীল এবং ফেডারেশনের ঝামেলাকে। অরিন্দম শীলের ড্রিম প্রজেক্ট ‘ভূমিকন্যা’ নিয়ে সমস্যা। সিরিয়ালের বাজেট মাত্রা ছাড়িয়ে যায় এবং সিরিয়ালটি মুখ থুবড়ে পড়ে। ফলে অভিনেতা এবং কলাকুশলীর পারিশ্রমিক এখনও বাকি। এই প্রতিবেদনেই আমরা জানিয়েছিলাম, ফেডারেশন থেকে জানানো হয়েছে, অরিন্দম দু’সপ্তাহের মধ্যে আড়াই কোটি টাকা ফেডারেশনে জমা না দিলে তাঁকে ‘ব্যান’ করা হবে। মুখ্য চরিত্রে সোহিনী সরকার অভিনয় করেছিলেন এবং তিনি নাকি সম্প্রতি অভিযোগ করেছেন ফেডারেশনে, তিনি প্রায় ৫০ লক্ষ টাকা পান। অনির্বাণ ভট্টাচার্যর প্রাপ্য প্রায় ৩০ লক্ষ টাকা! খবর ছিল, টাকা না দিতে পারায় আপাতত অরিন্দমকে ব্যান করা হয়েছে। সিরিয়ালের লাইন প্রোডিউসিংয়ের কাজও তিনি আর করতে পারবেন না। যদিও অরিন্দমের বক্তব্য, ‘আমি জানি না কোথা থেকে আড়াই কোটির ফিগারটা আপনারা পেলেন! আর অনির্বাণ আমার কাছ থেকে ৩০ লক্ষ টাকা পায়, এটাও একটি হাস্যকর তথ্য। শুনুন, আমার কাছে অভিনেতা-অভিনেত্রী, টেকনিশিয়নরা কিছু টাকা পান ঠিকই, তবে তার পরিমাণ আড়াই কোটির হাফের হাফও নয়। আর হ্যাঁ, ইতিমধ্যেই ফেডারেশনের সঙ্গে আমার একটি মিটিং হয়েছে। যেখানে স্বরূপ বিশ্বাস, অপর্ণা ঘটক, অরিন্দম গঙ্গোপাধ্যায়, প্রসেনজিৎ চট্টোপাধ্যায় উপস্থিত ছিলেন। আমরা একটি মধ্যস্থতায় এসেছি। যার ফলস্বরূপ আমি এই মাসের মধ্যেই একটি বড় অংশের বকেয়া টাকা মিটিয়ে দেব। বাকি টাকাটা ধীরে ধীরে কাজ করতে করতে মিটিয়ে দেব। আমাকে ব্যান করার কোনও প্রশ্নই কিন্তু নেই।’ অন্যদিকে অরিন্দমের পরিচালনায় এসভিএফ-এর ব্যানারে ব্যোমকেশ ফ্র্যাঞ্চাইজ়ের পরবর্তী ছবির শুট শুরু হওয়ার কথা ছিল জুন মাসে, শোনা যাচ্ছে সেটিও নাকি পিছিয়ে গিয়েছে!তবে অরিন্দম সেই তথ্য উড়িয়ে দিয়ে দাবি করলেন, ‘পিছিয়ে যাওয়ার প্রশ্নই নেই, ব্যোমকেশের শেডিউল বরং এগিয়েছে। হ্যাঁ, আমার একটি ছবির কাজ পিছিয়েছে, সেটা মিমির সঙ্গে। তবে তার কারণ অন্য। ওটা পিছিয়েছে একান্তই মিমির পলিটিকাল কমিটমেন্টের কারণে।’ কোনটা সত্যি, কোনটা মিথ্যে, সেটা হয়তো বোঝা যাবে আগামী কয়েক সপ্তাহের মধ্যেই।