magazine_cover_12_September_19.jpg

Bolly News

বলিউডে চুণী গোস্বামীর চরিত্রে বাংলার অমর্ত্য

Amartya-Ray-big দিনটা ছিল সেপ্টেম্বর মাসের চার তারিখ, বছরটা ১৯৬২… জাকর্তার মাটিতে দক্ষিণ কোরিয়ার বিরুদ্ধে লড়াইটা সহজ ছিল না ভারতীয় ফুটবল টিমের। তার উপর আবার দু’জন ডিফেন্ডারেরই চোট, গোলকিপারের জ্বর! সকলে প্রায় ধরেই নিয়েছিলেন, ভারতীয় দলের কোনও আশা নেই, একজন বাদে। কোচ সৈয়দ আবদুল রহিমে ওরফে ভারতীয় ফুটবলের বিখ্যাত ব্যক্তিত্ব ‘রহিম সাহেব’ হার মানেননি। আর সেই হার না মানা জেদ ছড়িয়ে দিয়েছিলেন জার্নেল সিংহ, ত্রিলোক সিংহ ও পিটার থঙ্গরাজের মধ্যে। ওদিকে পি কে ব্যানার্জি ও চুণী গোস্বামীও ছিলেন তুখোড় ফর্মে! ফলাফল? ২-১ গোলে ভারতের জয়!

ঠিক সেই উচ্ছাসকেই পরদায় ছবি হিসেবে আনতে চলেছেন ‘বধাই হো’-র পর পরিচালক অমিত শর্মা। ‘ময়দান’ নামের এই ছবিটি ভারতীয় ফুটবলের বিখ্যাত ব্যক্তিত্ব ‘রহিম সাহেব’ বা‌ সৈয়দ আবদুল রহিমের জীবন অবলম্বনে তৈরি। মুখ্য চরিত্রে অভিনয় করবেন অজয় দেবগণ। রহিম সাহেবের কোচিং-‌এ পরপর দুবার এশিয়ান গেমস ফুটবলে সোনা পেয়েছিল ভারতীয় ফুটবল দল। সেই স্বর্ণযুগ এবার উঠে আসবে এই ‘ময়দান’ ছবিতে। ছবিতে চুণী গোস্বামীর ভূমিকায় অভিনয় করছেন অভিনেত্রী চৈতি ঘোষালের পুত্র অমর্ত্য রায়। অমর্ত্য এর আগে প্রসেনজিৎ চট্টোপাধ্যায়ের প্রযোজনায় অভিষেক সাহার পরিচালনায় ‘উড়নচণ্ডী’ ছবিতে অন্যতম মুখ্য চরিত্রে অভিনয় করেছেন। এছা়ড়া পরিচালক মিতালী ঘোষালের ‘২২ ইয়ার্ডস’ নামক ছবিতেও দেখা গিয়েছে তাঁকে। তবে নিজে ফুটবল খেলতে ভালবাসেন বলে চুণী গোস্বামীর চরিত্রটি পেয়ে তিনি বেশ উত্তেজিত! অবশ্য হাড়ভাঙ্গা পরিশ্রম করতে হচ্ছে তাঁকে, জিম আর ফুটবল ট্রেনিং চলছে নিয়ম করে। আসলে ফুটবলারদের শরীরের একটা আলাদা ভাষা থাকে, সেটা আয়ত্ত করাই মূল লক্ষ্য তাঁর। বর্তমানে ফিন্ম অ্যান্ড টেলিভিশন ইনস্টিটিউটে ডিরেকশন নিয়ে পড়ছেন অর্মত্য। আর তার পাশাপাশি চলছে অভিনয়। এই ছবিতে অভিনয় করছেন বাংলার আরও এক অভিনেতা রুদ্রনীল ঘোষ। অমর্ত্য জানালেন তিনি বরাবরই খেলা আর গান বাজনা ভালবাসেন। জানালেন, ‘কলেজে আসার পর খেলা একটু কমেছে, তবে গান আর জ্যামিং বে়ড়েছে অনেক বেশি।’ আপাতত শুটিং চলছে ‘ময়দান’-এর, ক্লাসের ফাঁকে-ফাঁকে শুটিং করছেন তিনি। তবে কার তত্ত্বাবধানে ফুটবল শিক্ষা চলছে তা নিয়ে কিছুতেই মুখ খুললেন না তিনি, শুধু বললেন, ‘আমাদের টিমটা সেরা টিম, ভারতীয় ফুটবলের অন্যতম বিখ্যাত কোচের কাছেই চলছে আমার ফুটবল শিক্ষা।’

শ্রেয়া ঠাকুর